কিভাবে ভ্যাট সার্টিফিকেট করতে হবে ? কিভাবে ভ্যাট সার্টিফিকেট নবায়ন করবেন? ভ্যাট সার্টিফিকেট করতে কত ফি দিতে হয় ? Vat certificate bangladesh AtoZ

আপনারা অনেকেই জানেন যে  ভ্যাট সার্টিফিকেট ছাড়া বাণিজ্যিক ভাবে আমদানি করলে জরিমানা গুনতে হয়। আবার আধুনিক কালে ভ্যাট সার্টিফিকেট ছাড়া ব্যবসা বাণিজ্য করা একদম অসম্ভব হয়ে পড়েছে।  আজকে আমি দেখাবো কিভাবে ভ্যাট সার্টিফিকেট করতে হয়? ভ্যাট সার্টিফিকেট নিয়ে   আপনাদের বিস্তারিত বলার চেষ্টা করবো। পোষ্ট শেষ পর্যন্ত পড়ার অনুরধ রইলো।


প্রথমে বলবো ভ্যাট সার্টিফিকেট প্রাপ্তির জন্য যে সব কাগজপত্র প্রয়োজন

* ভ্যাট সাটিফেকেট প্রাপ্তির জন্য সরকার কর্তক প্রনীত নিদিষ্ট ফরম (মুসক-৬)

* দুই কপি সত্যাইয়িত ছবি ।

* টিআইএন সার্টিফিকেট।

* ট্রেড লাইসেন্স।

* ব্যাংক সলভেন্সি সার্টিফিকেট।


অনেক গুলি ব্যবসার একটি ভ্যাট সার্টিফিকেট কিভাবে করবেন?

উৎপাদন পর্যায় তথা কারখানা ব্যতীত অন্যান্য ব্যবসা যেমন আমদানীকারী , রপ্তানীকারী বা সরবাহরকারী, কর যোগ্য সেবা প্রদানকারী যেমন হাসপাতাল, পার্লার অথবা সেবা রপ্তানীকারী প্রতিষ্ঠান যদি একই  স্থান হতে ব্যবসা কার্যক্রম পরিচালনা করেন এবং হিসাব নিকাল ও রেকর্ড পত্র কেন্দ্রীয়ভাবে সংক্ষন করলে উক্ত ব্যবসার পরিচালনা করার জন্য আপনি কেন্দ্রীয়ভাবে একটা  ভ্যাট সার্টিফিকেট নিলেই হবে ।


কেন্দ্রীয়ভাবে ভ্যাট নিবন্ধনের জন্য কার বরাবরে আবেদন করতে হবে ?

জাতীয় রাজস্ব  বোর্ড, রাজস্ব ভবন , ঢাকা বরাবরে আবেদন করতে হয়।


কেন্দ্রীয়ভাবে ভ্যাট নিবন্ধনের জন্য আবেদনের সঙ্গে কি কি দলিলপত্র থাকতে হবে ? 

কেন্দ্রীয়ভাবে ভ্যাট নিবন্ধনের জন্য নিন্মোক্ত দলিলপত্রাদি থাকতে হবে ,

১.মুল্য সংযোজন কর সনদপত্রের অনুলিপি ( যদি না থাকে )

২. মুল্য সংযোজন কর নিবন্ধনের জন্য আবেদন ( মুসক -৬) যদি না থাকে ।

৩. টি . আই . এন সনদপত্র এর অনুলিপি।

৪. কর পরিশোধ সনদপত্র।

৫ . কেন্দ্রীয় নিবন্ধনের অধীন ইউনিট সমুহের মানচিত্র।

৬ . কেন্দ্রীয় নিবন্ধনের অধীন ইউনিট সমুহের ট্রেড লাইসেন্স এর অনুলিপি ( ফটোকপি )।

৭.  কেন্দ্রীয় নিবন্ধনের অধীন ইউনিট সমুহের ভাড়া চুক্তি বা মালিকানা দলিলের অনুলিপি।

৮. ব্যবসা সংঘ স্মারক এবং সংঘবিধি বা পরিমালার নিয়ামাবলীর সত্যায়িত অনুলিপি ।


আরও পড়ুন

কেন্দ্রী নিবন্ধনপত্র প্রদান

এভাবে আপনি আবেদন করার পর জাতীয় রাজস্ব বোর্ড বিশেষ আদেশ জারী করে আদেশ বর্নিত শর্তাদি পালন সাপেক্ষে কেন্দ্রীয় নিবন্ধন ব্যবস্থায় মুসক কার্যক্রম  পরিচালনার নির্দেশ প্রধান করে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় দপ্তরকে ঐ আদেশে বর্নিত ঠিকানায় কেন্দ্রীয় নিবন্ধনের দেওয়া আদেশ জারী করে এবং উক্ত আদেশের সর্বোচ্চ দুই কার্যদিবসের মধ্যে বিভাগীয় দপ্তর করদাতাকে নিবদ্ধন ফরম প্রধান করবে ।


উৎপাদন ব্যবসার নিবন্ধন

 উৎপাদন ব্যবসার নিবন্ধন নিতে আপনাকে নিচের বিষয় গুলি উপস্থাপন করতে হবে।


* উৎপাদনস্থলে বা ব্যবসা স্থলের আঙ্গন , প্লান্ট . যন্ত্রপাতি  বা ক্রয় - বিক্রয় বা মজুদযোগ্য পন্য ও এর উপকরনের বিষয়ে একটি ঘোষনা পত্র।

* ইনকর্পোরেশন সার্টিফিকেট এবং স্মারক সংঘ এবং বিধি (কোম্পানীর ক্ষেত্রে)

* বাড়ি ভাড়া চুক্তিপত্র অথবা মালিকানা দলিল (ফটোকপি)

* কারখানা নকশা ( কারখানার ক্ষেত্রে )

 

ভ্যাট সার্টিফিকেট প্রাপ্তিতে কি পরিমান ফি দিতে হয় ? 

ভ্যাট  সার্টিফিকেট প্রাপ্তির জন্য কোন প্রকার ফি এর প্রয়োজন নেই ।এটি সরকার ফ্রিতেই করে দিবে।


আরও পড়ুন

কিভাবে ভ্যাট  সার্টিফিকেট নবায়ন করবেন?

বানিজ্যিক আমদানিকারকগনের ক্ষেত্রে প্রত্যেক বছর একবার ভ্যাট  সার্টিফিকেট নবায়ন করতে হয় ( মুসক ৬ (ক) ফরম , বিধি ১১ ক অনুসারে ) । তবে বানিজ্যিক আমদানিকারক গন ভিন্ন অন্যান্যদের ক্ষেত্রে ভ্যাট  সার্টিফিকেট নবায়ন করার কোন প্রয়োজন নেই ।


কোন অফিস হতে ভ্যাট  সার্টিফিকেট সংগ্রহ করতে হয়?

কতগুলো এলকা নিয়ে একটা মুসক বিভাগ গঠিত হয় । কোন এলাকার জন্য ভ্যাট  সার্টিফিকেট প্রপ্তির জন্য আবেদন এবং প্রয়োজনীয় প্রক্রিয়াদি ঐ নিদিষ্ট বিভাগে সম্পন্ন করতে হয় । তবে কোন বিভাগের আওতার কোন কোন এলকা রয়েছে এই বিষয়ে কোন চুড়ান্ত তালিকা এখোনো প্রকাশ করা হয়নি ।

আপনার আসে পাশে খোঁজ নিলেই দেখবেন অনেক রাজস্ব অফিস আছে তাদের থেকেই এই ভ্যাট সার্টিফিকেট করে নিতে পারবেন।


পোষ্ট টি শেয়ার করার অনুরধ রইলো । ভালো থাকবেন সবাই।

বিস্তারিত
চট্টগ্রাম বন্দরে এক মাসেই দুই লাখ ৬৫ হাজার কনটেইনার ওঠানামার রেকর্ড ।। Container in chittagong

চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের নভেম্বর মাসে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরে রেকর্ড পরিমাণ কনটেইনার ওঠানামা হয়েছে । সংখ্যায় এই পরিমাণ দুই লাখ ৬৫ হাজার

একক ।  এই পরিমাণ বন্দরের ইতিহাসে কনটেইনার ওঠানামায় সর্বোচ্চ রেকর্ড গড়েছে। এর আগে চলতি অর্থবছরের জুলাই মাসে দুই লাখ ৫৯ হাজার একক

কনটেইনার ওঠানামার রেকর্ড করেছিল চট্টগ্রাম বন্দর। আর গত মার্চ মাসে রেকর্ড ছিল দুই লাখ ৫৪ হাজার একক।


কনটেইনার ওঠানামার বিদ্যমান যন্ত্রপাতি ও টার্মিনাল-জেটি দিয়েই এর আগে রেকর্ড গড়েছিল বন্দর কর্তৃপক্ষ। আর নভেম্বর মাসে রেকর্ড গড়ার কারণ হচ্ছে কনটেইনার

ওঠানামার আধুনিক নতুন ছয়টি যন্ত্র ‘কি গ্যান্ট্রি ক্রেন’ যুক্ত হওয়া।


চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক (পরিবহন) গোলাম সারোয়ার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘নতুন ছয়টি কি গ্যান্ট্রি ক্রেন যুক্ত করে বন্দরের নিউমুরিং কনটেইনার টার্মিনাল

 (এনসিটি) সচল হওয়ায় কম সময়ে বেশি কনটেইনার ওঠানামা সম্ভব হয়েছে। এতেই কনটেইনার ওঠানামায় নতুন রেকর্ড গড়েছে। এতে বন্দরের সক্ষমতা বেড়েছে;

আমরা প্রবৃদ্ধির এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চাই।’


জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে নতুন জেটি ও টার্মিনাল চালু না হওয়া; কনটেইনার ও পণ্য ওঠানামায় নতুন যন্ত্র যোগ না হওয়ায় চট্টগ্রাম বন্দরের ধারাবাহিক প্রবৃদ্ধি সামাল

দেওয়া কঠিন হয়ে পড়েছিল। জেটি খালি না থাকায় জাহাজগুলোকে পণ্য নিয়ে বহির্নোঙরে বাড়তি সময় অলস বসে থাকতে হতো। এতে প্রতিদিন জাহাজের

আকারভেদে আট থেকে ১২ হাজার ইউএস ডলার ক্ষতি গুনতে হতো ব্যবসায়ীদের। এ নিয়ে বন্দর ব্যবহারকারীদের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বাড়লেও তা আশ্বাসের

মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল।


জানা গেছে, চলতি ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে দুই লাখ ৪৩ হাজার একক কনটেইনার ওঠানামা হয়। এরপর ফেব্রুয়ারিতে তা কমে দুই লাখ ২১ হাজার

এককে উন্নীত হয়। সর্বশেষ মার্চ মাসে দুই লাখ ৫৪ হাজার একক ওঠানামা করে আগের সব রেকর্ড ছাড়ায় বন্দর কর্তৃপক্ষ। এরপর জুলাই মাসে দুই লাখ

৫৯ হাজার একক কনটেইনার ওঠানামা করে নতুন রেকর্ড গড়ে। নভেম্বর মাসে সেই রেকর্ডও ছাড়ায়।


জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনাল, চিটাগাংয়ের সাবেক প্রেসিডেন্ট গিয়াস উদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন,

‘পণ্য ওঠানামার ধারাবাহিক প্রবৃদ্ধি সামাল দেওয়া ছিল চট্টগ্রাম বন্দরের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।

নির্ধারিত সময়ে গ্যান্ট্রি ক্রেনসহ অন্য যন্ত্রপাতি যুক্ত করা, অচল গ্যান্ট্রি ক্রেন সচল করা,

নতুন টার্মিনাল নির্মাণ দ্রুত করার অনেক উদ্যোগ বর্তমান চেয়ারম্যান নেওয়ায় ব্যবহারকারীদের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি এসেছে। এখন সেটি ধরে রাখতে হবে।’

বিস্তারিত
ভারত থেকে কি কি পন্য আনা যায় ।। ভারত থেকে আমদানি পণ্য তালিকা Import List of India

ভারত থেকে পণ্য আমদানি করতে চান অনেকেই । আপনি যদি লাইচেঞ্ছ দিয়ে আমদানি করতে চান তবে সকল প্রকার পণ্য
ভারত থেকে আমদানি করতে পারবেন। আজকের পোষ্টে আমি লেখার চেষ্টা করবো ভারত থেকে আমদানি পণ্য তালিকা। তবে
কিছু পণ্য আছে যেসব পণ্য ভারত থেকে আমদানি করা নিষেধ। আজকের ভারত থেকে আমদানি পণ্য তালিকায় আমি আপনাদের
সাথে ভারত থেকে নিষিদ্ধ  আমদানি পণ্য তালিকা দেয়ার চেষ্টা করবো।

ভারত থেকে আমদানি পণ্য তালিকা
শাম্পু, সিনে, থটিক ডিটারজেন্ট বেজড, টয়লেট সোপ, সিরামিক তৈজসপত্র, মিল্ক পাউডার এন্ড ক্রিম পাউডার, লজেন্সেস, থ্রিপিস
লুঙ্গি, জুতা, পাঞ্জাবী, জামস (ফ্রুট প্রিজার্ভস) , এন্ড জেলীস, সয়াবিন অয়েল, চিনি, ফ্রট জুসে, চীপস , মধু, সস্, সফ্ট ড্রিংস, ইন্সটান্ট নুড
এডিবল সানফ্লাওয়ার অয়েল, টুথপেষ্ট, লিপস্টিক, আফটার সেভ লোশন , কার্বনেটেড বেভারেজেস,  জামাকাপড় , পেন্সিল, বল পেন ইত্যাদি।

এছাড়া মেয়েদের সকল আণ্ডার গার্মেন্টস, ছেলেদের সকল প্রকার আণ্ডার গার্মেন্টস, থ্রি পিস, কুর্তা, শেরওয়ানী সহ সকল জামা কাপড়।

ভারত থেকে নিষিদ্ধ  আমদানি পণ্য তালিকা
চিংড়ি মাছ আমদানি নিষিদ্ধ, পপি সীড ও পোস্তা দানা আমদানি নিষিদ্ধ, ঘাস এবং ভাং আমদানি নিষিদ্ধ, আফিম আমদানি নিষিদ্ধ, ঘন চিনি আমদানি নিষিদ্ধ
কৃত্তিম সরিষার তেল আমদানি নিষিদ্ধ ।

বিস্তারিত
৫০০০ টাকায় ব্যাবসা শুরু করুন ।। Start business with 5000 taka
চানাচুর একটি মুখরুচক খাদ্য । মানুষ নিত্য প্রয়োজনের দ্রব্যের মধ্যে এটি আন্যতম । মানুষের এই চাহিদার প্রতি লক্ষ রেখে গড়ে উঠেছে  চানাচুর উৎপাদনের আনেক কারখানা । বর্তমানে প্রায় আনেক মানুষ এই বিজনেস এর সাথে জড়িত । চানাচুর উৎপাদন করতে তেমন বেশি পুজির দরকার হয় না এবং লাভ বেশি এবং বড় প্ররিসরে যায়গার ও প্রয়োজন হয় না ।  তাই আপনি চাইলে শুরু করতে পারেন এ বিজনেস টি ।

কিভাবে শুরু করবেন

এ বিজনেস আপনি দুই ভাবে শুরু করতে পারেন, প্রথমে আপনি নিজে বিক্রয় করে আথবা কোন দোকানে সরবারহ করে । তবে আজ কাল  শহর আঞ্চলে ভ্যানের মধ্যে করে চানাচুর বিক্রি করা হয় । আপনি সেখানে ও সরবারহ করতে পারেন । তবে আপনি নিযে দোকান দিয়ে ও এ ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন । তবে বিজনেস শুরু করার পুর্বে খুব ভেবে চিন্তে স্থান ,বাজার ও মানুষের চাহিদার প্রতি লক্ষ রেখে শুরু করতে হবে। তবে প্রথম আবস্থায় খেয়াল রাখবেন যেন আপনার পন্যটি অন্যদের তুলনায় ভেজাল মুক্ত পরিস্কার ও সুন্দর হয় ।

বিজনেসটি শুরু করতে  কি কি র-মেটিরিয়াল প্রয়োজন :

আপনি যদি প্রথম আবস্থায় মার্কেট প্লেস তৈরি করতে না পারেন তাহলে আপনি কোন প্ররিচিত কারখানা থেকে সংগ্রহ করে শুরু করুন । আর যদি মনে করেন আপনার মার্কেট আবস্থা ভালো তাহলে আপনি নিন্মের কিছু মেশিন কিনতে হবে যা দিয়েই আপনার ব্যবসাটি চলবে।

১ মিক্সার মেশিন যা দিয়ে চানাচুরের সাইজ তৈরি করা হয়। তবে এ কাজ আপনি ডাইস দিয়েও করতে পারেন তবে সময় বেশি লাগবে।
২ গ্যাসের চুলা যদি আপনার এলাকায় গ্যাসের লাইন না থাকে তাহলে একটি সিলিন্ডার নিতে হবে।
৩ কড়াই আপনার চাহিদা মত সাইজ নিবেন।

এবার আলোচনা করব চানাচুর তৈরি করতে কি লাগবে

১ বেসন লাগবে
২ তেল
৩ লবন
৪ মরিচের গুরা হলুদের গুরা ও অন্যন্য মসলা।

কিভাবে বিক্রয় করবেন :

আপনার বিজনেস যেহেতু উৎ্পাদন মুখী বিজনেস তাই আপনাকে পাইকারী দরে বিক্রয় করতে হবে । আপনাকে প্রথমে পেকেটজাত করন করতে হবে । এবং আপনার পোডাকটির একটি নাম নির্ধারন করতে হবে । পেকেট  ভিভিন্ন সাইজে করতে পারেন তবে আপনি প্রচলিত সাইজে করতে চেষ্টা করবেন । তবে  আপনার পোডাকটি প্লাস্টিক পলিথিন বা কোন প্লাস্টিক বোয়মে করে বিক্রয় করতে পারেন । চেষ্টা করবেন আপনার পোডাকটি যেন মানসম্পন্ন হয়। আপনার পোডাকটি বেশি বিক্রয় জন্য আপনি মপরসল দোকানের প্রতি খেয়াল রাখবেন । প্রথম আবস্থায় দোকনদারদের কিছু গিফট দিতে পারেন এতে তারা আপনার পন্যটি বেশি চলবে ।

দক্ষতা : এ বিজনেসতে আপনাকে চানাচুর তৈরির বাস্তব অবিজ্ঞতা থাকতে হবে । যদি আপনি অবিজ্ঞ না হন তাহলে আপনার আশে পাশে কারো কাছ থেকে শিখে নিতে পারেন ।

র-মটেরিয়িাল কোথায় পাবেন :

এই বিজনেস মেশিন পত্র আপনি আপনার শহরে পেতে পারেন । তবে ঢাকায় যারা মেশিন বিক্রয় করে আপনি তাদের কাছ থেকে আনতে পারেন । তারা আপনাকে মিশিন চালনা এবং তৈরি ও বিপনন বিষয়ে তারা আপনাকে দুই এক দিনের প্রশিক্ষন দিয়ে দিবে । চানাচুর প্রয়োজনীয় কাচামাল আপনি আপনার পাশের যে  কোন বাজার থেকে পেয়ে যাবেন।

ইনবেস্টমেন্ট :

এটি যেহেতু উৎপাদন বিজনেস তাই আপনাকে প্রথম আবস্থায় একটু বেশি ইনবেস্ট করতে হবে । আপনাকে প্রথম আবস্থায় মেশিন বাবদ ৩০ হাজার টাকা ও অন্যন্য খরচ বাবদ ৫ হাজার টাকা এবং যদি আপনার গ্যাসের লাইন না থাকে তাহলে সে বাবদ ৫ হাজার টাকা  তো সব মিলিয়ে ৪০ হাজার টাকা হলেই চলবে । আপনার বিক্রয় এর উপর নির্ভর করে ইনবেস্ট আরো বাড়াতে বা কমাতে পারেন ।

লাভ লোকসান :

এই বিজনেসটিতে তেমন লোসান নেই তবে আপনার অসতর্কতার কারনে আপনার লোকসন হতে পারে । তবে এ বিজনেসে ১২% থেকে ১৫% লাভ করতে পারবেন । আপনি যেহেতু পাইকারী বিক্রয় করবেন তাই আপনাকে লাভ একটু কম করতে হবে । এভাবে যদি আপনি আপনার বিজনেসটি চালিয়ে যান তাহলে আপনি প্রতি মাসে খুব সহযে ৩০ থেকে ৪০ টাকা আয় করতে পারবেন । 
বিস্তারিত
চার লাখ টাকার মেশিন দিয়ে প্রতি মাসে ১৬ লাখ টাকা আয় করুন ।। Puffed rice with automatic machine

যারা চাকরি না করে বিভিন্ন রকম ব্যবসা করার চেষ্টা করেন তাদের জন্য আজকে আমি একটা কোটি টাকার ব্যবসা শেয়ার করবো ।

আমাদের দেশে এখনো ব্যবসা করার মতো অনেক পথ আছে, এসব থেকে আমি এমন একটি ব্যবসার আইডিয়া শেয়ার করবো যা করে আপনারা

সহজেই কোটিপতি হতে পারেন । তেমনি বিদেশে গিয়ে চাকুরি না করে, বিদেশে যাওয়ার টাকায় আপনি বাংলাদেশে বসেই শুরু করতে পারেন মুড়ি তৈরির ব্যবসা । অটোম্যাটিক মেশিণে মুড়ি উৎপাদন করে পাইকারি বিক্রির ব্যবসা।

মুড়ি হচ্ছে এমন একটি খাদ্য জা আমাদের দেশে ১২ মাস সমানে চলে । ধর্মে,বর্ণ নির্বিশেষে আমাদের বাঙ্গালিদের প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় মুড়ি থাকেই ।

রোজা, পূজা ইত্যাদি অনুস্টানে মুরির হাহাকার চারি দিকে, তাই এই ক্রমবর্ধমান চাহিদাকে কাজে লাগিয়ে আপনিও শুরু করতে পারেন অটোম্যাটিক মেসিনে মুড়ি উৎপাদন ব্যবসা।

কিছুদিন আগেও আমাদের দেশে বাড়িতেই মুড়ি ভাজার কাজ হতো । কিন্তু বিজ্ঞান এর উন্নতির ফলে এখন আর সনাতন পদ্দতিতে মুড়ি ভাজা হচ্ছেনা।

বিজ্ঞানের উন্নতির সাথে সাথে অটোম্যাটিক মেশিনেই হচ্ছে এসব মুড়ি ভাজার কাজ । মুড়ি তৈরির মেশিন কয়েক ধরনের হয় যেমন বিদ্যুৎ চালিত, কাঠ, কয়লা চালিত, গ্যাস চালিত । বর্তমানে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে বিদ্যুৎ ও কাঠ, কয়লা বা গ্যাস চালিত মেশিনটি। এই মেশিন অল্প খরচে প্রচুর উতপাদন পাওয়া যায়, যেমন প্রতি ঘন্টায় কমপক্ষে ৩০০ কেজি থেকে শুরু করে আরো বেশি প্রডাকশন এর মেশিনও পাওয়া যায়।

আপাদত এই মেশিন নিয়েই কথা বলি, এটা চালাতে হলে আপনার বিদ্যুৎ, কাঠ, কয়লা বা গ্যাস লাগবে। যেহেতু এই উপাদান গুলি সহজ লভ্য এবং ব্যবসায়ী দৃষ্টিকোন থেকেও লাভজনক তাই এই ধরনের মেশিন ব্যবহার করা খুবই লাভজনক।

কি কি আছে এই মেশিনে

মেশিন এ আছে- ১ ঘোড়া ও ২ ঘোড়া ইলেক্ট্রিক মটর, ১০ ফিট ৬ ইঞ্জি ভাজার ড্রাম, চিমনি ১২ ফিট ইত্যাদি, তাই মেশিন সেটাপ করে ব্যবসা শুরু করতে আপনার

২২ ফিট টু ১৪ ফিট সাইজের রুম লাগবে।

মেশিন কোথায় পাবেন

মুরি ভাজার মেশিন কিনতে এখানে ক্লিক করুন ছোট মুড়ি ভাজা মেশিন ।। মিনি মুড়ি ভাজা মেশিন

আয় ব্যয় এর ধারনা।

এই মাপের একটি মেশিন সেটাপ করতে আপনাকে ব্যয় করতে হবে প্রায় ৩,৬০০০০ লক্ষ টাকা।

আয় এর ধারনা:

আপনি প্রতিদিন উৎপাদন করবেন ৩৫০ কেজি মুড়ি ঘন্টা হিসেবে, তাহলে প্রতিদিন এক শিফট ৮ ঘন্টায় ২৮০০ কেজি মুড়ি প্রায়। চাল কিনতে হবে ৩৫ টাকা কেজি,

মুড়ির চাল এর দাম কম, তাই পাইকারি রেটে ৩৫ টাকায় আপনি এই চাল পাবেন।

তাহলে প্রতিদিন চাল লাগবে ২৮০০ কেজি X ৩৫ টাকা = ১,০০,৮০০ টাকা। (এক লক্ষ আট শ টাকা)

প্রতিদিনকার মুড়ি প্রতিদিন সেল করতে হবে । যদি স্টক করেন, তাহলে ঝামেলা বেশী হবে। এতে আপনার মূলধন বেশী লাগবে। যদি আপনি প্রতিদিন তৈরি

করেন ২৮০০ কেজি মুড়ি, তাহলে ৩০ দিনে পাবেন ৮৪০০০ কেজি মুড়ি।

যার বর্তমান বাজার মুল্য পাইকারি হিসেবে বিক্রি করলে পাবেন -৮৪০০০ কেজি গুন ৬০ টাকা = ৫০,৪০,০০০ টাকা প্রায়।

তাহলে ব্যয়-

এবার দেখাবো মোট ব্যয় কত হতে পারে।

প্রতিদিন চাল লাগবে ১০০৮০০ টাকার ৩০ দিনে ৩০২৪০০০ টাকা

চালে খরচ ৩০২৪০০০

লাকরি ৩০ দিনে ১০০০০০

বিদ্যুৎ ১০০০০০

পলিব্যগ বস্তা ১৫০০০০

লেভার খরচ ৩ জন ৩০০০০

অন্যান্য খরচ।

৫০০০০

--------------------------------

মোট ব্যয়- ৩৪৫৪০০০ টাকা প্রায় খরচ মাসে

তাহলে ইনকাম হচ্ছে-

মুড়ি বিক্রি করে আয় ৫০৪০০০০ টাকা

মাসে খরচ। ৩৪৫৪০০০ টাকা

মোট লাভ হচ্ছে ১৫৮৬০০০ টাকা প্রায় প্রতি মাসেই লাভ হবে সুধ মুক্ত ভাবে শুধু হালাল উপায়েই।

বিস্তারিত
পাঁচ লাখ টাকার মেশিন দিয়ে প্রতি মাসে দুই লাখ টাকা আয় করুন ।। Full automatic Wire Nail Making Machine

বাংলাদেশে পেরেক বা তারকাটা একটি অতি প্রয়োজনিয় বস্তু । বড় দালান কোঠা নির্মাণে , গৃহ নির্মানের কাজে, ফার্নিচার তৈরিতে, অনুস্টানের প্যান্ডেল তৈরি করতে,

বিভিন্ন অনুষ্ঠানের স্টেজ তৈরিতে পেরেক খুবই জরুরি একটা উপাদান।

গ্রামে বা শহরে সর্বত্র এই পেরেকের চাহিদা খুব বেশী, তাই এই পেরেক উৎপাদন ব্যবসা খুবই লাভজনক। এই ব্যবসা করতে খুবই অল্প পুঁজি ইনভেস্ট করতে হয় ।

তবে এটা খুবই লাভ জনক ব্যবসা।


কিভাবে শুরু করবেন

এই ব্যবসা শুরু করতে আপনাকে প্রথমে শহরের আসে পাশে একটি ভালো যায়গা বেঁছে নিতে হবে। যেখানে পেরেকের কাঁচা মাল সহজেই আনা নেওয়া যাবে ।

কারণ পেরেক তৈরিতে অনেক লোহার তার প্রয়োজন হয়। এসব তার অনেক ভারী হয়ে থাকে। যেন ছোট ট্রাক ভ্যান আপনার কারখানায় পৌছতে পারে সেরকম

একটা স্থানে কারখানা দিতে হবে। তবে এসব কারখানায় প্রচুর শব্দ উৎপন্ন করে। তাই জনসমাগম এলাকায় এসব কারখানা দিবেন না।

পেরেক বানানোর কাঁচামাল হিসেবে পুরাতন বিল্ডিংয়ের ছাদের ও ব্রিজের লোহা/রড ব্যবহার করা হয়। প্রথমে লোহাগুলোকে সোজা করে ৪ ইঞ্চি, ৫-৬ ইঞ্চি,

৮-১০ ইঞ্চি, ১২-১৬ ইঞ্চি মাপে কেটে  কয়লার আগুনে পুরিয়ে চৌরাশ  করে নির্দিষ্ট ছাঁচে ফেলে ছাদ পিটিয়ে পেরেক তৈরি করা হয়।

এছাড়াও ২০০০ টাকা মণ দরে নতুন লোহা কিনে এনে পেরেক তৈরি করা যায়। পুরাতন লোহায় করলে খরচ কম হবে।


মেশিন এর দাম:

৩৮০০০০-৪৫০০০০ টাকা, মুল্য আপ ডাউন করে।


এই ফ্যাক্টরিতে তেমন কোন শ্রমিক লাগবেনা, এটা দুই এক জন হলেই সম্ভব, ৮-১০ টা মেশিন ১-২ জন লোকেই চালাতে পারে, ফুল ওটোমেটিক সিস্টেম।

তবুও যদি নিতে চান সহকারি হিসেবে একজন নিতে পারেন। এক জন শ্রমিকদের প্রতি কেজি তৈরিতে মজুরি হিসেবে ৪০ টাকা দেওয়া হয়।

দুইজন শ্রমিক দৈনিক ১৫-২০ কেজি পেরেক তৈরি করতে পারে।  এতে প্রতি শ্রমিক দৈনিক ৩০০-৪০০ টাকা আয় করে। আমরা খরচ বাদে বাজার ভেদে

প্রতি কেজি  ১৪০-১৫০ টাকা দরে বিক্রি করি।


কাঁচামাল কোথায় পাবেন:

কাচামাল মালিটুলা, নবাবপুর থেকে কিনতে পাবেন।


কোথায় বিক্রি করবেন এসব মালামাল :

মালিটোলা, নবাবপুর ছারাও আপনার এলাকার বা বিভিন্ন হার্ডওয়ারের দোকানে খুচরা বিক্রি বা পাইকারি সাপ্লাই দিতে পারবেন।

আরও পড়ুন


আয়- ইনকাম:

একটি মেশিন কিনে ব্যবসা শুরু করলে প্রতিমাসে মিনিমাম ১-৫ লক্ষ টাকা ইনকাম করা যায়, ব্যবসা বুঝে গেলে মেশিন বাড়িয়ে আয় বাড়ানো যায়।

 ২০০০ টাকা মণ দরে নতুন লোহা কিনে এনে পেরেক তৈরি করা করা হলে খরচ বাদে বাজার ভেদে

প্রতি কেজি  ১৪০-১৫০ টাকা দরে বিক্রি করতে পারবেন। তার মানে ৪০ কেজিতে ৬০০০ টাকা আয় করতে পারবেন। মাসে আপনি ১৮০০০০ টাকার

পেরেক বিক্রি করতে পারবেন। কাঁচা মাল ক্রয় করতে ৬০ হাজার টাকা খরচ হলে বাকি ১২০০০০ টাকা আপনার লাভ হবে।


মেশিন কোথায় পাবেন ?


এ বি সি ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড

রাজেন্দ্রপুর বাজার ( ক্যান্টনমেন্ট)

গাজীপুর ১৭৪১, ঢাকা

০১৯৭৭৮৮৬৬৬০, ০১৭৫৮৬৩১৮১৩

বিস্তারিত
৫ লক্ষ টাকার মেশিন দিয়ে বছরে ২ কোটি টাকা আয় করুন ।। Full automatic block making machine

প্রাচীন পদ্ধতিতে আমাদের দেশে কৃষি জমি নস্ট করে সেই মাটি দিয়ে যে ইট বানায় তা দেশের জন্য, পরিবেশের জন্য, কৃষির জন্য খুবই ক্ষতিকর । এছাড়া ইট প্রচলিত ভাঁটায় পুড়িয়ে শুকাতে গিয়ে আমাদের দেশের প্রাকৃতিক পরিবেশ আজ মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে । সরকার আমাদের পরিবেশের এই ভয়াবহ

বিপর্যয় ঠেকাতে ২০১৮ সাল থেকে সিটি কর্পোরেশন গুলিতে প্রচলিত ইট ভাঁটা এবং ২০২০ সালের মধ্যে সারা দেশে প্রচলিত ইট ভাঁটা তৈরি বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছে।

ইট ভাঁটা বন্ধ হলেও বন্ধ নেই বড় বড় দালান তোলা। কিন্তু ইটের বিকল্প কিছু মানুষ এতদিনে আবিষ্কার করে ফেলেছে। ব্লক হল প্রচলিত ইটের বিকল্প। এখন বাড়ি-ঘর, অফিস বিল্ডিং ইত্যাদি তৈরিতে সারা পৃথিবীর মতো আমাদের দেশেও ব্লক এর চাহিদা বাড়ছে। ব্লক দুই ধরনের হয় , যেমন সলিড ব্লক ও হলোব্লক । তবে আমাদের দেশে এখন ও ব্লকের প্রচলন তেমন হয়নাই। যারা দেশ বা বিদেশ ভ্রমন করেন অথবা যারা দেশের বাহিরে প্রবাসী আছেন তারাই এই ব্লক সম্পর্কে ভালো জানেন বা বুঝেন। এছাড়া দেশের সিংহ ভাগ লোকেই এই ব্লক সম্পর্কে বুঝেনা। ব্লক হল ইটের বিকল্প। সিমেন্ট, বালু আর পাথর দিয়ে এই ব্লক তৈরি করা হয়। এগুলু ইটের ছেয়েও মজবুত। ভুমিকম্প সহনশীল ।

ঢাকার মধ্যে প্রতিটি ইট ভাটার মালিক প্রতি সিজনে ইট ভাঁটা থেকে প্রায় ৫০ লক্ষ থেকে ১০ কোটি টাকা আয় করে থাকেন। তাই এই আয়টা আপনিও করতে পারবেন । ইটের বিকল্প ব্লক তৈরি করে যে কেউ প্রতি সিজনে যে কেউ ৫০ লাখ থেকে ১০ কোটি টাকা আয় করতে পারবেন অনয়সে। ইট ভাটার মালিক রা প্রতি বছর প্রায় ৫-৬ মাসে এই টাকা ইনকাম করেন । কিন্তু ব্লক সারা বছর তৈরি করা সম্ভব । তাই ব্লক তৈরি করে আপনি আরও বেশী পরিমাণে আয় করতে পারবেন। এখন যেহেতু আমাদের দেশে এই ইট ভাটা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে এবং উন্নত বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে তাই এই ব্লক এর চাহিদা আগামীতে প্রচুর পরিমাণে হবে।

কিভাবে শুরু করবেন

প্রথমে আপনাকে একটি ব্লক তৈরির মেশিন কিনতে হবে । এর পর একটা যায়গা নির্ধারণ যেখানে আপনার মেশিন পত্র স্থাপন করবেন। শহরের আসে পাশে হলে ভালো হবে।

মেশিনের দাম কত

মেশিন বিভিন্ন কোয়ালিটির বিভিন্ন প্রাইজের পাওয়া যায়।

মেশিনঃ

১- এক সাথে ২ পিস হলোব্লক তৈরির মেশিন ১৩০০০০ টাকা, প্রডাকশন দিনে- ১৫শ - ২ হাজার পিস।

২- এক সাথে ৬ পিস সলিট ব্লক তৈরির মেশিন ১২০০০০ টাকা, প্রডাকশন দিনে- ৫-৬ হাজার পিস।

৩- এক সাথে ৬ পিস হলোব্লক তৈরির মেশিন ৩৮০০০০ টাকা, প্রডাকশন দিনে- ৪-৫ হাজার পিস।

৪- এক সাথে ৬ পিস হলোব্লক তৈরির মেশিন হাইড্রলিক পেশার ৪৫০০০০ টাকা, প্রডাকশন দিনে ৪-৬ হাজার পিস।

মেশিন কিনতে ক্লিক করুন

হেভি মেশিনঃ

১- এক সাথে ৬ পিস ব্লক তৈরির মেশিন হাইড্রলিক, সাথে ৬ সেট ডাইস ৮৫০০০০ টাকা, প্রডাকশন দিনে ৪-৬ হাজার পিস।

২- এক সাথে ৬ পিস ব্লক তৈরির মেশিন হাইড্রলিক, কনভেয়ার বেল্ট সাথে, মিক্সার সাথে ১০ সেট ডাইস ১৮০০০০০ টাকা অটো, প্রডাকশন দিনে ৭-৮ হাজার পিস।

৩- এক সাথে ৬ পিস ব্লক তৈরির মেশিন হাইড্রলিক, গাড়ি চালিত, মিক্সার সাথে ৬ সেট ডাইস ২৩০০০০০ টাকা অটো, প্রডাকশন দিনে ১০-১৩ হাজার পিস।

এছাড়াও আরো বিভিন্ন ধরনের মেশিন পাওয়া যায়, আপনাদের পছন্দ অনুযায়ী মেশিন আমদানি করে নিতে পারবেন।

উপাদান কি কি লাগে

১- সিমেন্ট, ২- বালি, ৩-পাথর

আয় - ইনকাম

ব্লক মেশিনের

একেকটা ব্লক সমান আমাদের দেশের ৪.৫ (সারে চার) টা ইট । একটা ব্লক তৈরি করতে খরচ হয় ২৫-৩০ টাকা । প্রতি পিস ব্লক সেল করা হয় ৪০ টাকা। আপনি যদি প্রতি দিন ১০ হাজার ব্লক তৈরি করেন, তবে ব্লক এর দাম হবে ৩৫-৪০ টাকা করে সেল করলে মিনিমাম ৫ টাকা লাভ ধরলেও ৫০ হাজার প্রতি দিন ইনকাম করতে পারবেন। প্রতিদিন ৫০ হাজার টাকা করে হলে তাহলে ৩০ দিনে ৩০ x ৫০০০০ = ১৫০০০০০ (১৫ লাখ) টাকা প্রতি মাসে তাহলে এক বছরে ১২ x ১৫০০০০০ = ১৮০০০,০০০ টাকা লাভ করা সম্ভব ।

মেশিন কোথায় পাবেন

ব্লক মেশিনের জন্য আমাদের বি টু বি ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। Auto Brick Machine । চায়না অটো ব্লক মেশিন,কংক্রিট হলো ব্লক মেশিন (Hollow Solid block Machine)  এই কোম্পানি থেকে নিতে পারবেন আবার  Concrete Block Making Machine ভিজিট করতে পারেন।

বিস্তারিত
কিভাবে নিবেন বিএসটিআই এর লাইসেন্স ।। How to get BSTI Licence

আপনার একটি কারখানা রয়েছে আপনি সেখানে আনেক পন্য উৎপাদন কিন্তু আপনার উৎপাদন করা পন্য বাজারজাত করনে প্রশাসন আপনাকে বাধা দিচ্ছে এবং বলছে বিএসটিআই এর লাইসেন্স ছাড়া বাজারজাত করন করতে পারবে না।  আজকের পর্বে আমি বিএসটিআই থেকে কিভাবে সহজে লাইসেন্স পেতে পারেন সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো ।

প্রথমে  যেনে নেই বিএসটিআই এর কাজ কি ? বিএসটিআই মানে হল- বাংলাদেশ স্টান্ডার্স এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন । খাদ্য দ্রব্য , পাটবস্ত্র , কৃষিপন্য , বৈদ্যুতিক পন্য , রাসায়নিক পন্য সহ আরো ইত্যাদি পন্যের মান নিয়ন্ত্রন করা ও তদারকি করা হলো বিএসটিআই এর কাজ । বর্তমানে বাংলাদেশে ১৫৪ টি পন্যের বাজারজাত করনে বিএসটিআই এর লাইনেন্স বা অনুমদোন নেওয়া বাধ্যতামুলক । এছাড়া আপনি অন্যন্য পন্যের জন্য বিএসটিআই থেকে অনুমদন নিতে পারেন আবার না নিলেও কোন সমস্য হবে না । 


বিএসটিআই এর তালিকাভুক্ত ১৫৪ টি পন্যের মধ্যে উল্লেখযোগ্য পন্যগুলো হলো : আটা , ময়দা . সুজি , পাউরুটি . ভোজ্য তেল . সাবান , সেভিং ক্রিম , বেদ্যুতিক তার , চিনি সহ আরো ইত্যাদি । 


বিএসটিআই এর লাইসেন্স পেতে আপনার প্রতিষ্ঠানের  কিকি প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র লাগবে : 

১. আপনার প্রতিষ্ঠানে ট্রেড লাইসেন্সের কপি 

২. আপনার পন্যের ট্রেড মার্ক রেস্ট্রিশনের কপি । 

৩. টিন সাটিফিকেট এর কপি 

৪. আপনার কারখানায় যে পন্য উৎপদান করেন তা উৎপাদনে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতির তালিকা । 

৬. আপনার কারখানায় পন্য উৎপদনের পসেসের ফ্লো চার্ট আথাৎ যে প্রক্রিয়া আপনি পন্য উৎপাদন করেন 

৭.পন্যের মোড়ক / বা পন্যের লেবেলে থাকা সকল তথ্যবলী যা আপনি সংযোজন করেছেন এবং উৎপাদন তারিখ ও মেয়েদ উত্তীর্ন তারিখ সহ ইত্যাদি তথ্য । 

৮. আপনার উৎপাদিত পন্যে উপাদান গুলো । 

এগুলো হলো কমন আইটেমের কাগজ পত্র তা ছাড়া অন্যন্য  পন্যের জন্য আরো কাগজ পত্র লাগতে পারে । 

উপরুক্ত সকল কাগজ পত্র নিয়ে আপনি বিএসটিআই এর অফিসে  তেজগাঁ যেতে হবে । এবং সেখানে আপনি বিএসটিআই লাইসেন্স ফরম নিতে হবে । যথাযথ ভাবে পুরন করে এবং আবেদন ফ্রি  করে উক্ত কাগজ পত্রগুলো আপনাকে বিএসটিআই এর ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেন্টারে জমা দিতে হবে । জমা দেওয়ার পর তারা আপনাকে  আপনাকে একটি কনপারমেশন স্লিপ দিবে ।   

আবেদন করার পর আপনার কারখানা পরিদর্শন করা হবে ৬ কর্মদিবস এর মধ্যে তবে নানা কারনে কম বেশি হতে পারে ।  আপনার কারখানার মান এর পরিবেশ এবং পন্য উৎপাদনের আবস্থা ইত্যাদি তথ্য সংগ্রহ করবে। কারখানার পরিদর্শন রিপোট সন্তোষজনক পাওয়া গেলে তারা আপনার পন্যেকে সীলগালা করা হবে । বিএসটিআই বা এর যে কোন প্রতিষ্ঠান উক্ত সিলগালা পন্য পরীক্ষনের জন্য পরীক্ষন ফ্রি সহ জমা দেওয়ার জন্য চিঠি তারা আপনার প্রতিষ্ঠান বরাবর চিঠি পাঠাবে । 

আপনি সেখানে আপনার পন্য দিয়ে আসবেন । তারা আপনার পন্যেটিকে পরীক্ষা করে যদি তাদের মানের সাথে আপনার পন্যের মান মিলে যায়  তাহলে তারা আপনাকে চুড়ান্ত লাইসেন্স এর জন্য জানাবে । এর পর আপনি চুড়ান্ত লাইসেন্স ফ্রি প্রধানের মাধ্যমে আপনি বিএসটিআই এর লাইসেন্স পেয়ে যাবেন।  এখন আপনি তাদের লোগো আপনি আপনার পন্যে  ব্যবহার করতে পারবেন । 

বি:দ্র; নতুন লাইসেন্স এর ক্ষেত্রে আবেদন পত্র এর সাথে দরখাস্ত ফি বাবদ ১ হাজার টাকা এবং নবায়নের ফি বাবদ ৫ টাকা জমা দিতে হবে ।

বিস্তারিত
ট্যুরিজম বিজনেস করে প্রতি মাসে আয় করুন ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা ।। Tourism Business

ভ্রমন আনেকের কাছে নেশা আবার কেউ সখে বা কোন ঐতিহাসিক স্থান দেখতে ভ্রমন করছে। এ বিশ্বে মানুষ কাজে ব্যস্ত থাকার মাঝে যখন সুযোগ পাচ্ছে তখন কোন স্থানে ভ্রমন করছে । বাংলাদেশ প্রসিদ্ধ ও ঐতিহাসিক স্থানে মানুষের ভ্রমন করার জন্য গড়ে তুলছে পর্যটন এলাকা । এসব ভ্রমন পিপাসু মানুষের সেবা দেওয়ার জন্য গড়ে উঠছে অসংখ্য ট্যুরিজম প্রতিষ্ঠান  । এর মধ্যে কোনটি রয়েছে লাইনেন্সধারী আবার কারো নেই । ট্যুরিজম বিজনেস করে  আপনি ভ্রমন কারীদের  সেবা দেওয়ার পাশাপাশি এখান থেকে আপনি আয় করতে পারবেন । আপনি যদি এ বিজনেসএর প্রতি আগ্রহি হন তাহলে আপনি শুরু করতে পারেন এ বিজনেসটি । ট্যুরিজম বিজনেসএ আপনি প্রতি ট্যুর থেকে প্রত্যেক ব্যক্তি থেকে ১০% পর্যন্ত আয় করতে পারবেন । তো আপনি চাইলে শরু করতে পারেন ট্যুরিজম বিজনেসটি।

কিভাবে শুরু করবেন:

ট্যুরিজম বিজনেসটি শুরু করতে হলে এ বিজনেসটির প্রতি আপনার অগ্রহি থাকতে হবে । এ বিজনেসটি যদি আপনি গ্রামে শুরু করেন তবে চেষ্ট করবেন দুই তিন জন মিলে শুরু করতে । দুই তিন জন মিলে শুরু করলে ভালো রেজাল্ট পাবেন। বিজনেসটি শুরু করার পুর্বে আপনাকে কয়েকটি বিষয়ে লক্ষ রাখতে হবে । এবং এসব বিষয়ে ডাটা সংগ্রহ করতে হবে যেমন -

১. ভ্রমন উপযোগি স্থানে ডাটা সংগ্রহ করতে হবে । ২. সেখানে যাতায়াত কিভাবে সুবিধা হয় এবং খরচ কম হয় কিভবে সে বিষয়ে আপনার পূর্ন ধারনা রাখতে হবে । ৩. আপনি যেখানে ভ্রমন করবেন সেখানে হোটেল বা কোন স্থানে থাকতে সুবিধা হবে যে বিষয়ে জানতে হবে । ৪. ভ্রমন উপযোগি স্থানের ভালো ছবি রাখতে হবে যাতে আপনি কোন কাস্টমারকে দেখাতে পারেন  । মুটামুটি আপনি এসব বিষয়ে ধারনা থাকলে আপনি প্রতি ট্যুর থেকে আয় করতে পারবেন । 

আপনি যদি আনলাইনে এ বিজনেসটি শুরু করেন তাহলে আপনাকে প্রথমে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করতে হবে আর যদি আপনি চান তাহলে আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন ।

বিজ্ঞাপন -

আপনি যেকোন ট্যুর তৈরি করতে হলে আপনাকে প্রথমে  বিজ্ঞাপন দিতে হবে।চেস্টা করবেন এলাকা ভিত্তিক ট্যুর তৈরি করতে। আপনি চাইলে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে তবে প্রথম আবস্থায় সোস্যাল মিডিয়ায় দিয়ে শুরু করবেন। 


কিভাবে একটি ট্যুর তৈরি করবেন : 

আপনি ভ্রমন কারীদের কাছ থেকে মতামত নিয়ে প্রথমত একটি স্থান নির্বচন করতে পারেন । তবে খেয়াল রাখবেন সে স্থানটি যেন আকর্ষনীয় এবং ভ্রমন কারীদের পচন্দমত হয় । একটি ট্যুর তৈরি করতে কমপক্ষে ১৫ দিন বা একমাস সময় নিবেন । আপনি যে স্থান নির্ধারন করবেন সে স্থানে কয়েকটি ছবি রাখবেন এবং সে স্থান সম্পর্কে প্রচার করবেন । ভ্রমন ফ্রি নির্ধারন এর ক্ষেত্রে অন্যন্যদের চেয়ে একটু কম রাখার চেষ্টা করবেন । মুটামুটি ৩০ বা ৫০ জন হলে একটি ট্যুর তৈরি হয়ে যাবে এবং আপনি ভ্রমন করতে পারেন । ভ্রমন করার পূর্বে একটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে সেটি হলো গাড়ি বা যাতায়াত ব্যবস্থা আপনি আপনার ট্যুরের লোক হিসাব করে গাড়ি নিবেন তবে বেশি লোক হলে খরচ কম হবে । আপনার ট্যুর এর একটি নাম নির্ধারন করতে পারেন এবং আপনার ট্যুর এর সবিধার্থে একটি টি-সাট নির্ধারন করতে পারেন যাতে আপনার ট্যুর নাম থাকবে এতে আপনার সুবিধা হবে । ট্যুর শুরু করার পুর্বে একটি ফরম দিতে পারেন যাতে কিছু নির্দিশিকা দেওয়া থাকবে । এবং ভ্রমনের পুর্বে আবশ্যই  ভ্রমন ফ্রি নিয়ে নিবেন তা না হলে আপনি যামেলায় পড়বেন । 

ট্যুর এর নিরাপর্তা : 

আপনি আপনার ট্যুর এর নিরাপর্তা জন্য কিছু ঔষুদ রাখতে পারেন । তাছাড়া দেখাশুনা করার জন্য একজন লোক নিয়োগ করতে পারেন । সব সময় আপনি যে পরিমান লোক নিয়েছেন তাদের গুনে রাখবেন । এবং সবসময় বলবেন যেন কেউ আপনাদের নির্ধারিত স্থান ব্যতৃত অন্য স্থানে না যায় । 


ট্যুরিজম বিজনেসটির স্থান নির্ধারন : 

এ বিজনেটির জন্য আপনাকে নিদিষ্ট স্থান নির্ধারন জরুরি । তবে এর জন্য আপনাকে দোকান দিতে হবে না । আপনি আপনার বাড়িতে ও দিতে পারেন । তবে আপনি যদি মনে করেন তাহলে ছোট পরিসরে দিতে পারেন । চেস্টা করবেন স্থানটি যেন সকলের প্ররোচিত হয়।


ট্যুরিজম বিজনেসটির ইনবেস্টমেন্ট:

এ বিজসেনটিতে আপনার তেমন বেশি খরচ হবে না । আবার আপনি যদি চান তাহলে আপনি বেশি খরচ করতে পারেন । তবে নিন্মের বিষয়ে আপনাকে খরচ করতে হবে । ১. নিরাপত্তা বাবদ খরচ ২. ঔষুদ বাবদ খরচ ৩. ফিকনিক করার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র কেনার খরচ যদি আপনি হোটেলে থাকেন তাহলে লাগবেন না ।  ৪. বিজ্ঞাপন বাবদ খরচ যা একবারে সামান্য  আর যদি আপনি চান তাহলে আপনার ট্যুর এর নামে টি-সাট তৈরি করে নিতে পারেন এতে আপনার তেমন বেশি খরচ হবে না। তো সব মিলিয়ে আপনাকে প্রথম আবস্থায় ৫ হাজার টাকা ইনবেস্টমেন্ট করলেই হবে । আর বাকি খরচ আপনি কাস্টমার থেকে যাত্রার পূর্বে নিয়ে নিবেন । চেষ্টা করবেন একটু কম নিতে । 

আপনার সেবার মান ঠিক রাখতে সব সময় চেষ্টা করবেন । 


প্রতি ট্যুর থেকে আয় : 

আপনি সাধারন ভাবে প্রতি ট্যুর থেকে জন প্রতি ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন । আপনি যদি জনপ্রতি ৬০০ টাকা মুল খরচের সাথে  বেশি নেন তাহলে আপনার খরচ বাদে ৪০০ টাকা থাকবে । আর একটি ট্যুর ৪০ থেকে ৫০ জন না হলে যাত্র করবে না এতে আপনার লাভ কম হবে । তো মুটামুটি আপনি প্রতি ট্যুর যদি এভাবে করেন তাহলে আপনি সেখান   থেকে ২০ থেকে ২২ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন অনায়াসে । এভাবে আপনি যদি প্রতি সাসে ২ থেকে ৩ টি ট্যুর করেন তাহলে আপনি প্রতি মাসে খরচ বাদে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন । ট্যুর শুরু করার পূর্বে অবশ্যই বুঝে শুনে শুরু করবেন। আপনার যদি কোন কারনে লোকসান হয় তাহলে এই পোস্ট দায়ী থাকবে না। 

বিস্তারিত
চায়না হতে আমদানি করবেন কিভাবে
আমদানি ব্যবসা এখন বেশ একটি লাভজনক ব্যবসা। বাংলাদেশে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা হয়ে থাকে। তার মধ্যে অন্যতম দেশ হল চায়না।

বাংলাদেশ থেকে সরকারী হিসাব মতে সবচেয়ে বেশী আমদানি হয় চায়না থেকে। আজকের পোষ্টে আমি কিভাবে চায়না হতে আমদানি করবেন সে বিষয়ে
বিস্তারিত লেখার চেষ্টা করবো। চায়না হতে আমদানি করার জন্য আপনাকে কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করতে হবে। যদি সিদ্ধান্ত নিয়েই থাকেন কি চায়না প্রোডাক্ট আপনি চায়না হতে আমদানি করতে চান তবে আপনি প্রথমেই ঠিক করতে হবে কি ভাবে চায়না প্রোডাক্ট সোরচিং করবেন। যদি অফলাইনে সোরচিং করতে চান তবে আপনি ভিসা করে চায়না চলে যেতে পারেন। সাধারণত বাংলাদেশিরা সেনজিনে গিয়ে থাকে। সেখানে প্রচুর চায়না প্রোডাক্ট পাবেন। ভিসা করে চায়না যেতে আপনাকে ১ লাখ টাকার মত খরচ করতে হবে।

তবে যেহেতু চায়নাতে গিয়ে  চায়না হতে আমদানি করতে প্রাথমিক ভাবে অনেক খরচ হয়ে যাবে তাই আপনি চাইলে অনলাইন থেকে দাম ঠিক করতে এবং অনলাইনের মাধ্যমে চায়না হতে আমদানি করতে পারবেন। তাহলে চলুন শুরু করি কিভাবে অনলাইনে চায়না হতে আমদানি করবেন। আপনারা নিশ্চয়ই আলিবাবা ডট কম নামে একটি সাইটের কথা জেনে থাকবেন । আলিবাবা ডট কম থেকে খুব সহজেই পণ্য আমদানি করতে পারবেন । আমি কয়েক ধাপে আলিবাবা ডট কম দিয়ে চায়না হতে আমদানি করার বিষয়টা আলোচনা করবো।

আপনি যদি এসব ঝামেলা থেকে মুক্ত থেকে আমদানি করতে চান তবে যোগাযোগ এই আর্টিকেলটি পড়ুন কিভাবে চায়না বা ইন্ডিয়া থেকে ডোর টু ডোর সার্ভিস দিয়ে কোন আমদানি লাইসেন্স ছাড়াই পণ্য আমদানি করবেন ?


প্রথম ধাপ (এ্যাকাউন্ট খোলা)
আলিবাবাতে এ্যাকাউন্ট খোলা। আলিবাবাতে এ্যাকাউন্ট খোলা খুবই সহজ প্রক্রিয়া। আলিবাবার এ্যাকাউন্ট দুই ধরনের হয় ৷ একটি হলো সেলার এ্যাকাউন্ট ৷ আরেকটি হলো বায়ার এ্যাকাউন্ট ৷ সেলার হলো তাদের এ্যাকাউন্ট, যারা আলিবাবাতে পণ্য বিক্রয় করবেন ৷ আর বায়ার এ্যাকাউন্ট হলো আমরা যারা আলিবাবা থেকে পণ্য ক্রয় করবেন ৷ তবে আলিবাবাতে একটি এ্যাকাউন্ট দিয়ে বায়ার সেলার দুটোই হতে পারবেন ৷ আলিবাবাতে এ্যাকাউন্ট করতে প্রথমে এখান থেকে ক্লিক করুন ৷ এবার আপনার ভ্যালিড ইমেইল দিয়ে alibaba.com এ একটি এ্যাকাউন্ট করুন খুব সহজেই ৷ আপনি আপনার ইমেইল দিয়ে দিন। এবার তারা আপনাকে একটি ভেরিফিকেসন কোড পাঠাবে। ইমেইল থেকে সেন্ড লিঙ্ক এ ক্লিক করে ভেরিফিকেসন কোড দিয়ে আকাউন্ট কনফার্ম করুন। আপনি বায়ার হলে খুব বেশী তথ্য দিতে হবেনা।  তবে আপনি যদি সেলার হোন তবে অনেক কিছু দিতে হবে। আপনার যথা সম্ভব তথ্য দিয়ে ফর্ম টি পূরণ করে এ্যাকাউন্ট খোলার কাজটি শেষ করুন।

কিন্তু আপনি আলিবাবাতে এ্যাকাউন্ট না খুলেও আপনি পন্য ক্রয় করতে পারবেন ৷ তবে যোগাযোগ প্রক্রিয়া নির্ভরযোগ্য করতে alibaba.com এ এ্যাকাউন্ট করতে হয় ৷ কারণ সেলার আপনাকে পুনরায় খুজে পেতে পারবে। অন্যথায় আপনার অর্ডার হারিয়ে ফেলতে পারে। এ্যাকাউন্ট খোলা হলে এক ধরণের ম্যাসেজ করার সফটওয়্যার দেয়া হবে আপনাকে। যাতে করে আপনি সেলারের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন । আবার অনেক সময় আপনি তাদের ইনকুয়ারি দিতে গেলে আপানকে এ্যাকাউন্ট খোলতে বলবে। সেজন্য আগেই এ্যাকাউন্ট খুলে নিলে ভালো হবে।  যেহেতু আপনি বায়ার, সেহেতু তেমন কোন তথ্য দেবার প্রয়জনীয়তা নেই ৷ মন চাইলে দিবেন না হয় দিবেননা ৷ তবে আপনি যদি সকল তথ্য দিয়ে আকাউন্ট খুলেন তাহলে আপনার ইমেইল সেলারের কাছে ভালো গ্রহন যোগ্যতা পাবে

আপনি যদি এসব ঝামেলা থেকে মুক্ত থেকে আমদানি করতে চান তবে যোগাযোগ এই আর্টিকেলটি পড়ুন কিভাবে চায়না বা ইন্ডিয়া থেকে ডোর টু ডোর সার্ভিস দিয়ে কোন আমদানি লাইসেন্স ছাড়াই পণ্য আমদানি করবেন ?

দ্বিতীয় ধাপ (পন্য খুজে বের করা)
এ্যাকাউন্ট খুলা শেষ হলে  alibaba.com ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে আপনার কাঙ্ক্ষিত পণ্যটি alibaba.com থেকে খুজে বের করা। প্রথমে  আপনি  alibaba.com ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে আপনার কাঙ্ক্ষিত পণ্যটির নাম সার্সবারে গিয়ে লিখুন ৷ আপনি যে পন্য চাইবেন সেটাই লেখতে পারেন ৷ তবে পণ্যের নামটি অবশ্যই ইংরেজিতে লেখতে হবে।  যেমন কলম কিনতে চাইলে pen লেখে সার্স করলে দেখবেন কয়েক শ , কলম সেলারের ঠিকানা চলে আসবে ৷

তৃতীয় ধাপ (সেলার নির্বাচন করতে কোন কোন বিষয় গুলি মাথায় রাখতে হবে?)

সেলার নির্বাচন করতে অবশ্যই চেষ্টা করবেন গোল্ড সাপ্লায়ার সেলার নির্বাচন করতে  ৷ কারণ গোল্ড সাপ্লায়ার সেলার হলো, alibaba.com এর এক বিশেষ ধরণের ভেরিফিকেসন ব্যবস্থা । প্রত্যেক সেলারকে গোল্ড সাপ্লায়ার সেলার হতে হলে মিনিমাম ১২০০ ডলার বাৎসরিক ফি দিতে হয়।  alibaba.com এর এক বিশেষ টিম এসে সেলারের অফিস ভিজিট করে তাদের সেলিং সিস্টেম ভিজিট করে ভেরিফিকেসন করে। সুতরাং গোল্ড সাপ্লায়ার সেলার থেকে পণ্য আমদানি করা অনেক বেশী নিরাপদ। চেষ্টা করবেন 5 Years gold suppliers চিহ্ন আছে এরকম কাউকে বেছে নেবার জন্য । তবে আপনি চাইলে তার কমও 3 Years gold suppliers নিতে পারেন ৷ কিন্তু সাবধানে কাজ করবেন ৷ পণ্যের দাম কি FOB নাকি CFR এটা ভালো করে দেখে নিবেন । অনেকেই হয়তো জানেননা FOB বা CFR কি বিষয়। সহজ ভাষায় FOB হলো সেলার আপনাকে পণ্য কেবল তার দেশের পোর্ট পর্যন্ত পৌঁছে দিবে। ট্রান্সপোর্ট ফি আপনাকে পরিশোধ করতে হবে। কিন্তু যদি দামের জাগায় CFR লেখা থাকে তবে বুজবেন সেলার আপনাকে পণ্য আপনার দেশের পোর্ট পর্যন্ত পৌঁছে দিবে। ট্রান্সপোর্ট ফি  তারা পরিশোধ করে দিবে।

এবারের কাজ হলো Country of origin লেখাটা ভালো করে দেখে নিবেন। অর্থাৎ পণ্যটি কোথায় উৎপাদিত এটা দেখে নেয়া জরুরী। না হয় এমন ও হতে পারে আপনি জাপানের পণ্য অর্ডার করে চায়না পণ্য ও পেতে পারেন। ৷ আবার চায়না পন্য, তাইওয়ান বলেও চালিয়ে দিতে পারে ৷ অনেক সময় তারা এক দেশের সেলার আরেক দেশের পণ্য সেল করে । এটা করা যায় । কিন্তু আপনি চেষ্টা করবেন যে দেশের পণ্য সে দেশের সেলার থেকে ক্রয় করতে । সর্বশেষ দেখবেন সেলার কি পণ্য নিজে উৎপাদন করে নাকি সোর্সি করে । যদি তারা পন্য নিজেরা উৎপাদন না করে তবে তারা দাম বেশী চাইবে ।  কারন তারা Middle man  হিসাবে কাজ করে ।

আর যদি তারা নিজেরা সরাসরি উৎপাদন করে তবে তারা অন্যদের চেয়ে কম দামে দিতে পারবে চতুর্থ ধাপ (সেলারের সাথে যোগাযোগ করা) যাহোক পন্য সিলেক্ট করলেই দেখবেন, পাশে Contact Seller বা Get latest price নামে সেলার কে মেসেজ বা ইমেইল করার বাটন আছে৷  বাটনে ক্লিক করলেই সেলারকে মেসেজ করার একটা অপশন চলে আসবে।  মেসেজে আপনার কি পণ্য, কি পরিমাণ লাগবে সেটা বিস্তারিত বলুন। সাথে আপনার পারসোনাল ইমেইল আইডিটা দিয়ে দিবেন৷ যাতে তারা পরবরতিতে আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারে । তবে যা কিছু লেখবেন অবশ্যই সেটা English এ হতে হবে । না হয় তারা বুঝবেনা । তবে এই মেসেজ লেখতে আপনাকে ইংরেজিতে এক্সপার্ট হওয়া লাগবেনা ৷ স্বাভাবিক ভাবে লেখলেই চলবে ৷

মেসেজে আপনি তাদের জিজ্ঞাসা করবেন কোন পন্য কত দামে তারা বিক্রয় করে । তবে তারা অনলাইনে যে দাম প্রদান করে তা অধিকাংশ সময়ই সঠিক থাকেনা। তাই অনলাইনে কম দাম দেখে এত বেসি উৎসাহি হবেননা । এবার হলো অপেক্ষা করার পালা ৷ দেখবেন কিছু দিন পর তারা ইমেইলে আপনাকে রিপ্লাই দিবে ৷ অথবা আলিবাবাতে এ্যাকাউন্ট থাকলে ইনবক্স চেক করতে পারেন ৷ দাম দর ঠিক করুন ৷ আর পেমেন্ট করা, এলসি করা , শিপিং সিস্টেম ইত্যাদি ঠিক করুন ৷

আপনি যদি এসব ঝামেলা থেকে মুক্ত থেকে আমদানি করতে চান তবে যোগাযোগ এই আর্টিকেলটি পড়ুন কিভাবে চায়না বা ইন্ডিয়া থেকে ডোর টু ডোর সার্ভিস দিয়ে কোন আমদানি লাইসেন্স ছাড়াই পণ্য আমদানি করবেন ?


পঞ্চম পর্ব (সাম্পাল আমদানি করা)

এই স্যাম্পল অধিকাংশ সময় ফ্রি দিয়ে থাকে। তবে দামি কোন পণ্য হলে ওরা আপনাকে ফ্রি দিবেনা। যদি ফ্রি না দেয় তবে আপানকে পণ্যের মূল্য তারা যে ভাবে চায় সেভাবে পরিশোধ করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনি তাদের ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন এর মদ্দমে পরিশোধ করতে পারেন অথবা ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমেও পরিশোধ করতে পারেন। কিন্তু আপনার এই কার্ড অবশ্যই দুই কারেন্সির সাপোর্ট করতে হবে। এবার আপনাকে শিপিং চার্জ পরিশোধ করতে হবে। এটা একটু জটিল। কারণ সাধারণত সেলাররা DHL,FEDEX,TNT ইত্যাদি কুরিয়ার আপনার সাম্পাল পাঠাবে। যাদের এসব কুরিয়ার  সার্ভিসে আকাউন্ট আছে তাদেরকে পণ্য ওরা পাঠিয়ে দিবে। আপনি বাংলাদেশে পেমেন্ট করে পণ্য নিয়ে নিতে পারবেন। কিন্তু আপনার যদি  DHL,FEDEX,TNT তে আকাউন্ট না থাকে তবে স্যাম্পল এর জন্য আপানকে আগেই সেলারকে কুরিয়ার চার্জ পরিশোধ করতে হবে। এবার আপনাকে কুরিয়ার থেকে ফোন করে জানানো হবে আপনার পণ্য চলে আসেছে । দুই ভাবে আপনি পণ্যটি পেতে পারেন। কুরিয়ার কোম্পানি আপনার কাছে পৌঁছে দিবে অথবা আপনাকে পণ্যের সকল কাগজ পত্র দিয়ে যাবে, আপনি ঢাকা এয়ারপোর্ট থেকে সি এন্ড এফ  দিয়ে পণ্য ছাড়িয়ে নিতে পারবেন।

কত  খরচ লাগবে পারে ?

সাধারণত  DHL,FEDEX,TNT একটা নরমাল পণ্য কুরিয়ার নিয়ে আসতে ২০০০ টাকা নিয়ে থাকে। ১ গ্রাম থেকে ১০০০ গ্রাম। কাস্টমস এর ট্যাক্স বিভিন্ন রকম হতে পারে। ৩০০০ টাকা নরমাল খরচ হবে। তাহলে সব মিলিয়ে ৪০০০ টাকা চলে আসলো। সাম্পাল ঠিক হয়ে গেলে এবার এলসি করে পণ্য আনার ব্যবস্থা করতে হবে। কিভাবে এলসি করতে হবে তা নিয়ে পোষ্ট দেয়া আছে। আমাদের ওয়েবসাইট থেকে দেখে নিতে পারবেন।
বিস্তারিত
alibaba & Import Export expert

আমদানি,রপ্তানি,আলিবাবা নিয়ে যেকোনো সমস্যায় আমাকে ফেসবুকে মেসেজ করুন।

এখানে ক্লিক করুন
© 2020 eibbuy. All Rights Reserved.
Developed By Takwasoft