প্রতিদিন ২-৩ ঘণ্টা কাজ করে মাসে ১৫-২০ হাজার টাকা আয় করুন

সকাল বেলা পার্কে মানুষ হাটতে বের হলে অনেকেই বিভিন্ন রোগের কন্ডিশন চেক করেন ৷ যেমন  প্রেশার, ডায়বেটিক, রক্তের গ্রুপ পরিক্ষা , ওজন  ইত্যাদি ৷ 

যারা স্টুডেন্ট আছেন তাদের জন্যই আজকের আইডিয়া ৷ এই সেবাটি আপনি দিতে পারেন প্ররাত ভ্রমন কারীদের৷ আর এটি হতে পারে আপনার আয়ের অন্যতম উৎস৷ 


কিভাবে শুরু করবেন ?

আপনি যেখানে থাকেন তার আশে পাশে কোন ভালো পার্ককে বেছে নিন এই ব্যবসাটি করার জন্য৷ ঠিক পার্কেই বসতে হবেনা ৷ পার্ক থেকে বের হবার রস্তায় বসলেই হবে ৷ জায়গা সিলেক্ট করে সিদ্ধান্ত নিন কি কি সেবা দিবেন ৷ 


যে সব সেবা দিতে পারেন

  • ওজন মাপা
  • ডায়বেটিক মাপা
  • কোলস্টোরাল মাপা
  • প্রেসার মাপা
  • রক্তের গ্রুপ মাপা 
  • হেপাটাইটিস বি
  • ও আরো নতুন নতুন 


আপাদত এই চারটা থেকে পাচটি হলেই চলবে ৷ কারন সকালে যারা প্রাত ভ্রমনে বের হন তাদের অধিকাংশ এই কাজ গুলো করেন ৷ 


কত মুলধন লাগবে 

চারটি মেশিন আপনি ৫০০০ টাকার মধ্যেই কিনতে পারবেন ৷ বাকি একটা চেয়ার টেবিল মিলিয়ে আরো ১০০০ টাকা ৷ সব মিলিয়ে ৬০০০ টাকা দিয়ে যে কেউ ব্যবসা শুরু করতে পারেন ৷ 


কি ধরনের অভিজ্ঞতা লাগবে ?

এসব কাজে খুব বেশী প্রশিক্ষনের দরকার নাই ৷ কারো থেকে একদিন প্রশিক্ষন নিলেই হবে ৷ তবে গায়ে একটা ইউনিফর্ম লাগালে আরো ভালো হবে ৷ কারন আপনাদেরকে চিনতে সহজ হবে। তাছাড়া আপনি আপনার কাছের লোক দিয়ে টেস্ট করাতে পারেন। 


এ সেবায় প্রতিটিতে কি ধরনের মুল্য নিতে পারেন? 


এ ধরনের আপনি অন্যদের চেয়ে একটু কম রাখতে চেস্টা করবেন। 

তবে নিন্মে তালিকা মত রাখতে পারেন। 

ওজন মাপা. ৫ 

ডায়বেটিক মাপা. ৪০

কোলস্টোরাল মাপা.১২০

প্রেসার মাপা.২০

রক্তের গ্রুপ মাপা. ১৫০

হেপাটাইটিস বি. ২০০

সাধারনত এই টাকা নিয়ে থাকে। আপনি আপনার এলাকায় দেখে নিবেন। আপনি ৩০ থেকে ৪০% লাভ করতে চেস্টা করবেন । 

লাভ লোকসান? 

এ ব্যবসা থেকে আপনি প্রতিটি আইটেম থেকে ৩০ থেকে ৪০% লাভ করতে পারবেন। প্রতি দিন আপনি ২ থেকে ৩ ঘন্টা কাজ করলে হবে। এভাবে আপনি যদি প্রতিদিন কাজ করে থাকে তাহলে আপনি প্রতিমাসে ১৮ থেকে ২০ হাজার টাকা আনায়াসে আয় করতে পারবেন।

বিস্তারিত
২০ হাজার টাকায় অন্য রকম ফুড ব্যবসা মাসে ৩০ থেকে ৪০ হাজার আয় করুন

চাকরির দুর্দিনে ব্যবসাই ভরসা৷ যারা কম পুজিতে ফুড ব্যবসা শুরু করতে চান তাদের জন্যই আমাদের আজকের আয়োজন ৷ তবে ৫ লাখ টাকা দিয়ে বিদেশে গিয়ে ৪০ ডিগ্রি তাপে মাজরাতে কাজ করার চেয়ে এই কাজ অনেক ভালো ৷


আজকে একটু ভিন্ন রকম ঝাল মুরির ব্যবসা নিয়ে আলোচনা করবো৷ গতানুগতিক গামলায় মুরির ঠোঙ্গা না ৷ স্পেশাল ঝাল মুরি ৷ 


বাজার সম্ভাবনাঃ

প্রচুর সম্ভাবনা রয়েছে ৷ মানুষ মুখরোচক খাবার বিশুদ্ধ খেতে চায় ৷ আর চায় ভিন্ন কিছু ৷


কিভাবে শুরু করবেন?

আগে একটা ছোট দোকান নিন ৷ ভিতরে আপনি দাড়াতে পারলেই হবে ৷ অথবা ফুড ভ্যান ও নিতে পারেন ৷ তবে দোকান হলে ষ্ট্যানডার্ড ৷ জনসমাগম স্থলে দিবেন ৷ এবার রান্নার ব্যাপারে ভালো কারো কাছে প্রশিক্ষন নিন ৷ যেমন মাংশ রান্না, ছোলা রান্না ইত্যাদি ৷


মুলধনঃ

তেমন মুলধন লাগেনা ৷ চলুন হিসাব করে দেখি ৷

১. চামচ+বাটি ২০ পিস (সিরামিক/মেলামাইন হাই কোয়ালিটি)

২০০০ টাকা ৷

২. মিশ্রন বোল (ষ্টিল) ৩০০ টাকা৷

৩. মসলা বয়ম ৫ পিস ৫০০ টাকা ৷

৪. মাংশ বোল+ঢাকনা ৩ টা ১০০০ টাকা ৷

৫. বালতি ২০০ টাকা ৷

৬. চেয়ার/টুল ২৫০০ টাকা


কাচা মাল ২৫০০ টাকা

গ্রামে দোকান এ্যাডভান্স ১০০০০ টাকার মধ্যেই পাবেন ৷

সব মিলিয়ে ২০০০০ টাকা


কিভাবে করবেন

ঝালমুরির মিনিমান ১০ টা আইটেম রাখতে হবে

১. কলিজা ঝাল মুরি (মুরগির কলিজা)

২.আচার ঝালমুরি (জলপাই আচারের মিশ্রন )

৩. মুরগির মাংশের ঝাল মুরি ৷

৪. মুরগির মথার ঝাল মুরি ৷ (শুধু মুরগির মাথা দিবেন)

৫.গরুর বটের ঝালমুরি (গরুর নাড়ি ভুড়ি দিয়ে ঝাল মুড়ি)

৬. গরুর কলিজা ঝাল মুড়ি৷

৭. খাসির মাথার ঝাল মুরি ৷

৮. গরুর মগজে ঝাল মুড়ি৷

৯. ছোলা ঝাল মুড়ি ৷

১০. ঘুগনি ঝাল মুড়ি ৷


গরুর কলিজা, বট, খাসির মাথা খুব ছোট ছোট করে কাটতে হবে ৷ যাতে প্রতি প্লেটে দুই এক পিস থাকে ৷ আর সরিষার তেলের পরিবর্তে মুড়িতে বাটা সরিষা মাখতে হবে ৷ এছাড়া চানাচুর, বিট লবন, শষা, ছোলা, মাংশ মসলার কষানো তেল কমন থাকবে ৷কাজ করতে গেলে আপনিও মাষ্টার হয়ে যাবেন ৷ তবে অভিজ্ঞ কারো পরামর্শ নিবেন ৷


লাভ লোকসানঃ

প্রতি স্পেশাল প্লেট মিনিমাম ৩০ টাকা বিক্রি করতে হবে ৷ ৩০ টাকার প্লেটে সর্বোচ্ছ ১৫ টাকার খাদ্য দিবেন ৷ ৫০% লাভ রাখতে হবে ৷ দিনে ১০০ কাষ্টমার হলেই যথেষ্ট ৷ ১০০ প্লেটে অন্তত ১৫০০ টাকা লাভ থাকবে ৷ 

কর্মচারি, বিদ্যুত, দোকান ভাড়া বাবদ ১০ হাজার বাদ দিলেও ৩০ হাজার অনায়সে থাকবে ৷  এ ব্যবসার পরিধি বাড়বে খাবারের টেষ্ট যত বাড়াতে পারবেন ৷ কোন রান্না বাচলে অবশ্যই ফ্রিজে রাখবেন ৷ তবে দিনকারটা দিনে শেষ করাই ভালো ৷ মুরগির মাথা আর কলিজা হোটেল গুলিতেই পাবেন ৷ এছাড়া শহরের মুরগির দোকানেও ঠিকা দরে মুরগির কলিজা , মাথা, পা ইত্যাদি বিক্রি হয় ৷


ব্যাক সাইড

এই ব্যবসার সবচেয়ে ভালো দিক হলো অল্প পুজিঁতে ভালো আয় ৷ তবে প্রতিযোগীতা থাকে মার্কেটে ৷ আপনার দেখাদেখী আরো অনেকেই আরাম্ভ করতে পারে ৷ কোয়ালিটি আর স্বাদের ব্যাপারে কোন কম্প্রমাইজ করবেননা ৷

বিস্তারিত
আলিএক্সপ্রেসের পন্য কোন ঠিকানায় সহযে পাবেন?

Aliexpress থেকে পন্য আপনি কোন ঠিকানায় সহজে পাবেন এটি একটি বিশাল সমস্যা হয়ে দিড়িয়েছে ৷ অনেকেই অভিযোগ করেন আপনারা পন্য পাননাই ৷ কেউ বলেন পন্য ওরা পাঠায় না ৷ কেউ বলেন ঠিকানা সঠিক হয়নি তাই পান না ৷


আজকের আলোচনা থাকবে কোন ঠিকানা ব্যবহার করলে সঠিক ভাবে পন্য পেতে পারেন ৷ মুলত গ্রামে থেকে Aliexpress থেকে ব্যবসা করা খুবই কঠিন কাজ ৷ কারন অধিকাংশ গ্রামের পোষ্ট অফিস গুলি জরাজীর্ন অবস্থা ৷ চিঠি ঠিক মত আসেনা ৷ আসলেও বিলি হয়না ইত্যাদি ইত্যাদি ৷ তথাপি গ্রামে বসে যে কোন পন্য হাতে পেতেও প্রচুর সময় লাগে ৷


সে জন্যে গ্রামে এসব করা অসম্ভব বললেই চলে ৷

থানা শহর গুলিতে এ ব্যবসা করা কিছুটা সহজ৷ কারন থানা শহরের পোষ্ট অফিস গুলি এখনও চলে ৷ তবে পরিচিত না থাকলে থানা শহরে পার্সেল হারানোর প্রবনতা বেশী ৷ বেশ কিছু অভিযোগ আছে যারা থানা শহরে পার্সেল পাননাই ৷ জেলা শহর পোষ্ট অফিস গুলি ভালো ৷ অনেকেই জেলা শহরে থেকে ব্যবসা করেন ৷


 কিন্তু একটি বিষয় খুব খেয়াল রাখবেন, আপনি যেন জেলা শহরের আশে পাশের এলাকায় না হন ৷ ঠিকানা দিতে হবে মুল শহরের ৷ কারন মুল শহরের ঠিকানায় সহজে পন্য ডেলিভারী হয় ৷

সবচেয়ে সহজ ঠিকানা হলো ঢাকা জিপিও ৷ এখানে পন্য ১০০% ডেলিভারী পাবেন ৷ কারন জিপিও তে পন্য ডেলিভারী করার জন্য স্পেশাল সার্ভিস আছে ৷


 জিপিও থেকে আপনাকে ফোন করে আপনাকে বলা হবে যে আপনার পন্যটি তাদের কাছে আছে ৷ তবে ঢাকার অন্যান্য পোষ্ট অফিসেও ডেলিভারি হবে ৷ কিন্ত জিপিওতে খুব তাড়াতাড়ি পন্য ডেলিভারী দেয় ৷ আর জিপিও থেকে পন্যটি অন্য পোষ্ট অফিসে যেতে অনেক সময় লাগে ৷


যারা ব্যবসা করবেন তারা ঢাকা জিপিওর আশে পাশের এলাকা সিলেক্ট করবেন ৷ তবেই ঝামেলা বিহীন ভাবে ব্যবসা চালিয়ে যেতে পারবেন ৷

বিস্তারিত
৩ লাখ টাকায় শুরু করুন সিমেন্ট টাইলস উৎপাদনের ব্যবসা । Tiles production Business

রাস্তা বা ফ্লরে বিছানোর জন্য সিমেন্ট টাইলস বা হাইড্রলিক টাইলস হাতে তৈরি করা হয় ৷ এই টাইলস ১৮৫০ সালের দিকে কাতালোনিয়াতে আবিস্কৃত হলেও বর্তমানে সারা বিশ্বে এর ব্যপক কদর রয়েছে ৷ এখন বাংলাদেশে ও শহর বা মফস্বলে এর ব্যপক ব্যবহার লক্ষ করা যায় ৷ দামে সস্তা এবং দীঘ্যস্থায়ী ৷ কোন বিদ্যুৎ-গ্যাস না পুড়িয়ে স্থানীয় কাঁচামাল বালু, পাথরের গুঁড়ার সাথে সিমেন্ট ও রঙ মিশিয়ে সম্পূর্ণ  পরিবেশবান্ধব বিভিন্ন সাইজ ও ডিজাইনের দৃষ্টিনন্দন টাইল্স তৈরি করা যায় ৷


বাজার সম্ভাবনাঃ

এটাকে অনেকে বাংলা টাইলস বলেন৷ বর্তমানে এই টাইলস রাস্তার সাইড, বিল্ডিংয়ের গ্রাউন্ড ফ্লোর, বাগানের ওয়াকওয়ে ইত্যাদি তৈরিতে প্রচুর ব্যবহার হচ্ছে ৷ খরচ কম ও মজবুত বলে এর চাহিদা দিনদিন বৃদ্বি পাচ্ছে ৷ অছাড়াও এই টাইলস বিদেশে রপ্তানি করাও সম্ভব ৷


মুলধনঃ

এই ব্যবসা মোটামুটি ৩ লাখ টাকায় শুরু করতে পারবেন ৷ চলুন একটু হিসাব করা যাক ৷


প্রেসার মেশিন - (1,500 PSI) ২ টা ১০০০০০ টাকা কম বেশী হতে পারে ৷

ঢাকার নবাবপুরে পাবেন

বালি - ১ ট্রাক

সতর্ক থেকে কিনবেন ৷ আরজিনাল মোটা বালি কিনার চেষ্টা করবেন ৷

পাথরের গুড়া - ১ ট্রাক

এটা আরও সতর্ক হয়ে কিনতে হবে ৷ চেষ্টা করবেন পরিচিত কারো থেকে কিনতে ৷

সিমেন্ট ৫০ বস্তা

পিগমেন্ট ৪/৫ কালার

মোল্ড ৪/৫ ষ্টাইলের

কর্মি সংখ্যা ৪ জন


গোডাউন আর সেটআপ মিলিয়ে মোটামুটি ৩ লাখ হলেই চলবে ৷ এই মুলধন বিক্রি অনুযায়ী আরো বাড়াতে পারবেন ৷


উৎপাদনঃ

এটা উৎপাদন খুবই সহজ কাজ ৷ কারো কাছে সামান্য ট্রেনিং নিলেই হবে ৷ তবে ভালো প্রফেশনাল ব্যাক্তির কাছে প্রশিক্ষন নিবেন ৷ যারা মেশিন বিক্রি করে তারাও প্রশিক্ষনের  ব্যবস্থা করে ৷ সাধারনত পিগমেন্ট লেয়ারের থিকনেস ৩ মিলি থেকে ৪ মিলি থাকে ৷ এই পিগমেন্টের উপর নির্ভর করেই পন্যের কোয়ালিটি নির্ধারন হয় ৷ মিনারেল বেজড পিগমেন্টের রং দীঘ্যস্থায়ী হয় ৷ নন মিনারেল পিগমেন্টের কালার হালকা হয়ে যায় ৷


কোথায় বিক্রি করবেন ?

সারা দেশেই বিক্রি করা যাবে ৷ তবে কনস্ট্রাকসন কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করে দেখতে পারেন ৷ এছাড়া টাইলস বিক্রি কারী প্রতিষ্ঠানের সাথেও কথা বলতে পারেন ৷


লাভ লোকসানঃ

এ ব্যবসার লাভ লোকসানের হিসাবটা খুব সাহজ হলেও বাকির চক্করে পড়ে অনেক সময় সর্বশান্ত হতে হয় ৷ তাই নগদ বিক্রির চেষ্টা থাকা লাগবে ৷ তবে সব ঠিকঠাক চললে  লেবার খরচ বাদে প্রতি মাসে ২০ থেকে ৩০ হাজার আয় করা  সম্ভব৷ বিনিয়োগ বাড়াতে পাড়লে আরো বেশী আয় করতে পারবেন ৷


কার সাথে যোগাযোগ করবেন ??

চেষ্ট করেছি দু একটা ফ্যাক্টরিতে কথা বলতে কিন্তু আসল তথ্য কেউ দেয়না৷ হয়তো প্রতিদন্ডি বাড়াতে চায়না ৷ যাহোক আপনি নিজে খুজে দেখতে পারেন ৷ আর নবাবপুরের মেশিন বিক্রেতারাও আপনাকে খোজ খবর দিতে পারবে ৷


ব্লাক সাইড ওফ বিজনেস

এই ব্যবসা সাধারনত বাকির ব্যবসা৷ মার্কেটে লক্ষ টাকা বাকি ফেলতে হবে ৷ পিগমেন্ট, পাথর গুড়াতে ভেজাল আর মাপে কম দেয় ৷ চায়না টাইলস বাজারে ভালো মার্কেট করে নিয়েছে ৷ এছাড়া বাংলাদেশে অনেক বড় বড় উৎপাদনকারীও আছে ৷ তারপরও চেষ্টা করুন ৷ চায়না টা ৮০ -৯০ টাকায় সেল হলেও বাংলাটা ৩০-৪০ টাকায় সেল হয়৷ তাই চিন্তা না করে নেমে পড়ুন ৷

বিস্তারিত
৩ হাজার টাকায় শুরু করুন ফুড সাপ্লাই ব্যবসা । Food supply Business

যারা সল্প আয়ে ব্যবসা করে নিজেকে সাবলম্ভি করতে চান তাদের জন্য আজকের ব্যবসার আইডিয়া।

আপনারা কনফেক্সনারি দোকান গুলিতে রেডিমেট কিছু খাদ্যদ্রব্য পাবেন। যেমন সিংগারা, চমুচা , বারগার ইত্যাদি। তাছাড়া রাস্তার পাশের ভ্যানের দোকান গুলিতেও এগুলি প্রছুর বিক্রি হয়। এগুলো সাধারনত তার নিজেরা তৈরি করে না । তারা কোন সাপ্লাইয়ার থেকে এনে বিক্রয় করে থাকে ।

আজকে আমি সেরকম খাবারের সপ্লাই  করার একটি লাভজনক আইডিয়া   শেয়ার করবো। এই বিজনেসটি করার জন্য আপনার তেমন বেশি মুলধনের প্রয়োজন হবে না । শুরু করার জন্য আপনাকে কোন দোকান দিতে হবেনা । আপনি চাইলে আপনার বাসা বাড়িতে কাজটি করতে পারেবন । তো আপনি চাইলে শুরু করতে পারেন এ লাভজনক ব্যবসাটি ।


কিভাবে শুরু করবেন?

 এ বিজনেসটি যেহেতু সাপ্লাই বিজনেস তাই শুরু করার পূর্বে আপনাকে মার্কেট প্লেস তৈরি করে নিতে হবে ।  প্রথম আবস্থায় একটা সাইকেল হলেই ছলবে।তার পর আপনি যাচাই করবেন আপনার কি পরিমান কাস্টমার আছে। মোটামুটি ৫০০ পিস ডেইলি  সেল করার কেপাসিটি তৈরি  করে নেবেন। কনপেক্সনারী দোকান, ভ্যান গাড়ি, টং দোকান মিলিয়ে ২০ টি দোকান হলেই ছলবে। তাহলে প্রতি দকানে ৩০ থেকে ৫০ পিস  দিলেই হবে।

কাজ শিখা

এ সব আইটে তৈরিতে তেমন বেশি এক্সপাট হতে হবে না । আপনি কোন দোকান  থেকে শিখে নিতে পারেন তাচাড়া ভিবিন্ন প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা এসব  আইটেম তৈরি করা শিখায়া । আপনি নিজে চেষ্টা করলে পারবেন ।


কত মুল লাগবে?

যেহেতু এটা রোলিং ব্যবসা  তাই মুলধন কম হলেও চলবে। কিছু মুলধন সামগ্রি নিবেন যা আপনার একবার নিলেই হবে , যেমন

১. বর কড়াই ২ পিস -২০০০ টাকা

২. দা,ছুরি, খুন্তি ইত্যাদি মিলিয়ে ২০০০ টাকা

৩. সাইকেল ১০০০০ টাকা

# তো সব মিলিয়ে আপনার স্থায়ী মুলধন = ১৪০০০ টাকা হলেই চলবে ।

আপনি যদি প্রথমিক আবস্থায়  ৫০০  পিস চমচা সিঙ্গার তৈরি করেন তাহলে প্রতি পিসে ৩ টাকা খর হয় তবে ১৫০০ টাকা খরচ হবে তবে সেটা আপনার চাহিদার উপর নির্ভর করবে । তাছাড়া আপনি যদি সাথে বারগার তৈরি করে তাহলে সে বাবদ আপনি দৈনিক ১৫০০ টাকা খরচ করতে পারেন । তো সব মিলিয়ে আপনাকে ৩০০ হাজার টাকা দৈনিক খরচ করলেই হবে                 

 তাহলে আপনার টোটাল ইনভেস্ট ১৭০০০ টাকা


কোথায় দোকান দিতে পারেন ?

আপনার এলকার কোন জনকীর্ন স্থানে বা কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশে পাশে বা শহরে কোন রাস্তার মোড়ে যেখানে মানুষের সমাগম বেশি হয় সেখানে দিতে পারেন । আপনি চেষ্টা করবেন যে আন্যদের চেয়ে আপনার পন্যটি একটু ভালো মানের হয় । খেয়াল রাখবেন আপনার পন্যটি যে সুন্দর হয় । 


ব্যবসার প্রসারতা : আপনি যদি দেখেন যে আপনার এ বিজনেসটি ব্যপক প্রসার ঘটচে তাহলে আপনি বড় আকারে পেক্টোরির মত করে নিতে পারেন । এবং বাংলাদেশের ভিবিন্ন যায়গায় সেল করতে পারেন । তাচাড় ডিলার এর মধ্যমে বিক্রয় করাতে পারেন । আপনার ব্যবসার প্রসারতা তখন হবে যখন আপনার পন্য যখন কাস্টমার সুনাম করবে ।


লাভ লোকশান

সিংগারা ছমুছা আপনি ১ টাকার বেশি লাভ করতে পারবে না। তাচড়া আপনি  যদি সাথে বারগার আইটে রাখেন তাহলে সেখান থেকে আপনি ২ থেকে ৩ টাকা লাভ করতে পারবেন ।  আপনি যদি দৈনিক ৫০০ পিস প্রথম আবস্থায় সেল করতে পারেন তাহলে আপনি সেখান থেকে ৫০০ টাকা অয় করতে পারবেন ।  আর যদি বারগার অইটেম  রাখেন সেখান থেকে ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা সব মিলিয়ে ১০০০ থেকে ১২০০ টাকা লাভ করতে পারবেন প্রতিদিন  খরচ বাদে । এ ভাবে আপনি যদি প্রতিদিন বিক্রয় করতে পারেন তাহরে প্রতি  মাসে ৩০ হাজার টাকা অনায়সেই লাভ করতে পারবেন।

আপনি যদি প্রথমি আবস্থায় কাজ না যানেন তাহলে কোন কারগর দ্বারা কাজটি করিয়ে নিতে পারেন এবং আপনি তার কাছে থাকলে এমনিতেই  শিখে নিতে পারেন ।

বিস্তারিত
পণ্য সরবরাহ কারী ব্যবসা করুন অল্প মূলধনে । Supplier Business Idea

আজকে আমি আপনারেদ সাথে একটি প্রচলিত ব্যবসাকে ভিন্ন ভাবে উপস্থাপন করব । আজকের ব্যবসাটি হল সরবরাহ কারীর ব্যবসা । সরবরাহ কারীর ব্যবসা হলো কোন প্রতিষ্ঠানে তাদের পন্য সরবারহ করা । বর্তমানে আনেক ছোট বড় প্রতিষ্ঠার রয়েছে যারা তাদের পন্য নিজেরা না কিনে কোন সরবরাহ কারীর ব্যবসায়ীর মাধ্যমে তারা এই কাজটি করিয়ে থাকে । বর্তমানে বাংলাদেশে এরুপ আনেক প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা এ ব্যবসা করে থাকে ।

এই ব্যবসা আপনি কয়েক ভাবে শুরু করতে পারেন। সবার আগে আপনাকে সিদ্যন্ত নিতে হবে আপনি কি ধরনের মালামাল সরবরাহ করতে পারবেন। আপনি ছোট সরবরাহকারী হিসাবে অথবা বড় প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে এই কাজ করতে পারবেন। যেমন সরকারী, বেসরকারি বিভিন্ন অফিস আদালতে বিভিন্ন স্টেশনারি আইটেম সাপ্লাই করতে হয়। আপানি যদি মনে করেন আপনি এসব আইটেম সাপ্লাই করতে  পারবেন তবে আপনিও একজন সরবরাহ কারী হতে পারেন। এসবের মধ্যে আছে কাগজ, প্রিন্টারের কালি, কলম, ভাউচার, ভিজিটিং কার্ড ইত্যাদি। এসব করতে আপনাকে বেশী টাকা ইনভেস্ট করতে হবেনা। আপনি কেবল ১ লাখ টাকা মূলধন জোগাড় করে ব্যবসায় নেমে পড়ুন।


কিভাবে শুরু করবেন?

প্রথমে আপনার প্ররিচিত কোন প্রতিষ্ঠানে খোজ করুন যারা এসব প্রতিষ্ঠানের ক্রয় বিভাগে কাজ করে তাদের সাথে যোগাযোগ করেন। এর পর কোন ধরনের পণ্য সরবরাহ করতে পারবেন ঠিক করুন। যেমন: আপনি একটা ব্যাংকের সকল প্রিন্টারের কালি সরবরাহ করতে চান তবে আপনি প্রথমে বাজার থেকে প্রিন্টারের কালি রেট সংগ্রহ করে একটি রেট কোটেশন তৈরি করুন। এর পর আপনার পরিচিত লোকের মাধ্যমে ব্যাংকে সাবমিট করুন। এরুপ অন্যন্য ক্ষেত্রে আপনি একই নিয়মে আনুসরন করুন । এবং আপনি সব সময় খোজ খবর রাখাবেন যারা এরুপ ভাবে পন্য ক্রয় করে থাকে । চেষ্টা করবেন রেট খুব কমে ধরার জন্য। প্রথমে একটি অর্ডার কমে সরবরাহ করাতে পারলে পরে বেশী ধরলেও সমস্যা হবে না। আপনি চেষ্টা করবেন যে অন্যরা যা সরবারহ করে তাদের চেয়ে একটু ভিন্ন কিছু পন্য সরবারহ করতে তাহলে আপনি রেট একটু বেশি ধরতে পারবেন ।


লাইসেঞ্চঃ

এটা করতে অনেক প্রতিষ্ঠানে আগে এনলিসটেড হতে হয়। সে জন্য আপনাকে লাইসেঞ্চ করতে হবে। কারন এসব প্রতিষ্ঠান তারা কোন লাইসেঞ্চধারী চাড় পন্য নেয় না । এটা করতে আপনাকে ১০ হাজার টাকা খরছ লাগতে পারে। আবস্থা ভেদে এর মান ভিন্ন হতে পারে। এর পর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে গিয়ে আপনার প্রতিষ্ঠানের নাম তাদের দিয়ে আসুন । ব্যাস। হয়ে গেল। যখনই ওরা কোন কাজের টেন্ডার দিবে আপনাকে ডাকবে।


লাভ কি পরিমাণ?

এ বিজনেসে লাভের পরিমান বেশি । কারন তারা আপনাকে আনেক পিস আর্ডার দিবে । আপনি প্রতি মাসে ২ থেকে ৩  অর্ডার পেলই আপনি ৪ থেকে ৫ লাখ টাকা আয় করতে পারবেন । এই ব্যবসায় সমস্যা হল আপনার সব টাকা একসাথে দিবে না। তবে টাকা অবশ্যই দিবে। সেজন্য দুইটি চালান আপনাকে হাতে রাখতে হবে। তবে অর্ধেকটা আপনাকে অর্ডার করার সাথে সাথে পরিশোধ করে দিবে। বাকিতে এক মাসের মধ্যেই দিবে। একটা ৫ লাখ টাকার অর্ডার থেকে আপনি অনয়সে এক লাখ টাকা আয় করতে পারবেন। আপনি কোন দালার এর মধ্যমে পন্য দিবেন না । তারা আপনার পন্যটি মেরে দিতে পারে ।


সর্তকতা : আপনি যে পন্য সরবরাহ করবেন যে পন্য আপনি মার্কেটে ভালো করে চিনে নিবেন । এবং মুল সেলার এর সাথে যোগাযোগ রাখবেন কারন তারা যখন আপনাকে কোন পন্য অর্ডার দিবে তখন তারা আপনাকে ৫০ থেকে ১০০ পিস দিবে না । তারা এক সাথে ১০০০ হাজার থেকে ২০০০ হাজার পিসের অর্ডার দিবে । তাই আপনি সেই কেপাসিটি রাখবেন । এক্ষেত্রে আপনি না দিতে পারলে আপনাকে তারা আর ডাকবে না ।

বিস্তারিত
অল্প টাকায় ডিজিটাল স্টুডিও ব্যবসা শুরু করুন । Start Digital Studio Business

বর্তমানে তথ্য প্রযুক্তির সহজ হওয়ার কারনে আমাদের দেশে ডিজিটাল ক্যামেরার প্রচুর ব্যবহার বেড়েছে । এর ফলে তৈরি হচ্ছে ডিজিটাল স্টুডিও  । শহরের পাশ পাশি গ্রামে চালু হচ্ছে । আল্প সময়ে ছবি তোলা যায় এবং ইন্টারনেট সেবা দেওয়ার একমাত্র প্রতিষ্ঠান বলে এ বিজনেসটি ব্যপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে । এ বিজনেসটি করতে কম বিনিয়োগ এবং দ্রুততার সাথে ব্যপকতা লাভ করে বলে এটি একটি জনপ্রিয় বিজনেস । এ বিজনেসটি সম্ভাবনাময় ও স্মাট । আজ আমি  Digital Studio Business এর সকল বিষয় নিয়ে এ পোস্টে আলোচনা করব । তো আপনি চাইলে দিতে পারেন এ লাভজনক বিজনেসটি ।


কোথায় দিতে পারেন ?

Digital Studio Business আপনি আপনার এলাকার কোন প্রতিষ্ঠানের আশে পাশে দিতে পারেন । তাছাড়া আপনার এলাকার কোন জনর্কীর্ন স্থানে বা কোন রাস্তার মোডে যেখানে মানুষের সমাগম বেশি হয় সেখানে দিতে পারেন । তবে প্রতিষ্ঠানের কাছে দেওয়া ভালো । 


একটি ডিজিটাল স্টুডিওতে কি কি কাজ করতে পারেন?

বর্তমানে  Digital Studio Business নানা ধরনের কাজ কার হয় । তবে আপনি এ বিজনেসটির শুরুতে কিছু কমন আইটেম রাখতে পারেন । যেমন : 

১. ছবি তোলা । ছবি ক্ষেত্রে স্ট্যাম সাইজ , পাসপোট সাইজ , বড় সাইজ থেকে শুরু করে যে কোন সাইজ তোলা পিন্ট করা । 

২. যে কোন সাইজের ছবিকে ছোট এবং বড় করা । 

৩. যে কোন পুরানো বা নষ্ট হওয়া ছবিকে ঠিক করে নতুন ছবি তৈরি করা । 

৪. সাদা কালো ছবিকে রঙ্গিন করা । 

৫. ফটো কপি করা । 

৬. কম্পোজ করা । 

৭. ছবি রাখার ফ্রেম বিক্রয় করা । 

৮. ইমেল করা । 

৯. এবং ইন্টারনেটে ভিবিন্ন সেবা দেওয়া । যেমন : পরিক্ষার রেজাল্ট বের করে দেওয়া , ভর্তি করে দেওয়া , মিটারের আবেদন করা , ইত্যাদি । 

উপরুক্ত

সেবা আপনি প্রথমিক ভাবে রাখতে পারেন । তাছাড়া আপনার ব্যবসার যখান ব্যপক প্রসার ঘটবে তখন আপনি নিন্মের সেবাগুলো প্রধান করতে পারেন । যেমন : 

১. কোন বিয়েরতে ডিএসএলআর দ্বার ভিডিও ও ছবি তোলা  । 

২. লেব পিন্ট করা । 

৩ . কেলেন্ডার করা , বিজিটিং কর্ড করা , বেনার তৈরি  করা । 

তবে এগুলো আপনাকে করতে হলে আনেক বেশি মুলধন ব্যয় করতে হবে  ।আপনি এগুলো শহরের কোন দোকান থেকে করিয়ে নিতে পারেন । 


এবার আলোচনা করবো  Digital Studio Business দিতে আপনাকে কি ধরনের অবিজ্ঞতা থাকতে হবে । 

মোটামুটি ইংরেজি জানতে হবে । ডিজিটাল স্টুডিও বিজনেস যেহেতু কম্পিউটার এর সমম্বয়ে তাই আপনাকে এর সম্পর্কে জ্ঞান থাকতে হবে । ডিজিটাল স্টুডিও বিজনেস শুরু করার পুর্বে আপনাকে নিন্মের অবিজ্ঞতা থাকতে হবে । 

১. কম্পিউটার চালনার অবিজ্ঞতা । 

২. ছবি তোলার অবিজ্ঞতা । 

৩. ফটোকপি এবং ছবি প্রিন্ট করার অবিজ্ঞতা । 

এগুলো আপনি কোন প্রতিষ্ঠান থেকে শিখে নিতে পারেন । সব মিলিয়ে আপনাকে ৪ মাসে কোর্স করলে  হবে । 


ডিজিটাল স্টুডিওর ডেকারেশন

 Digital Studio Business এর ডেকারেশন একটি গুরুত্বপুর্ন দিক । স্টুডিও অথ্যৎ যেখানে আপনি ছবি তোলবেন সে স্থানটি ভালো ভাবে তৈরি করবেন । এটির প্রথম বিষয় আলোক সজ্জার । দুটি ছাতা আকৃতি লাইট নিতে হবে । এবং পিচনে নীল আকারের কাপড় দেওয়া যেতে পারে অথবা কোন প্রকৃতিক ছবি দেওয়া যেতে পারে । খেয়াল রাখবেন আপনার স্টুডিওটি যেন অন্যন্যদের চেয়ে একটু ভালো হয় । 


কত টাকা ইনবেস্টমেন্ট লাগবে ?

প্রথমে একটি কম্পিউটার বাবদ ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা 

একটি ডিজিটেল ক্যামেরা ১৫ হাজার টাকার মত । 

একটি স্ক্যানার ৮ হাজার টাকা । 

একটি ভালো মানের প্রিন্টার ১২ হাজার টাকা । 

ছবি তোলার জন্য আলোক সজ্জা লাইট ১২ হাজার টাকা । 

সর্বশেষ আসবাব পত্র ৮ হাজার টাকা । 

অন্যন্য খরচ ২ হাজার টাকা । 

তো সব মিলিয়ে আপনাকে ৮২ হাজার টাকা ইনবেস্টমেন্ট করতে হব । তবে আপনার চাহিদা ও পন্যের মান অনুযায়ী এটি কম বেশি হবে পারে । চেষ্টা করবেন ভালো মানের ক্রয় করার জন্য কারন সেটি অনেক দিন টিকবে । 


লাভ লোকসান :

এ ব্যবসাতে আপনার লোসান নেই । আপনি এক পেজ ছবি বের করতে আপনার খরচ হবে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা কিন্তু আপনি সেটি কাস্টমার থেকে পাচ্ছেন ২৫০ টাকা । ফটোকপিতে একই ধরনের লাভ হয়ে থাকে মোট কথা আপনি সব পন্যে ৪০ থেকে ৪৫% লাভ করতে পারবেন। এভাবো আপনি যদি প্রতি মাসে দোকান প্ররিচালনা করেন তা হলে আপনি প্রতি মাসে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা আনায়াসে আয় করতে পারবেন।

বিস্তারিত
মছের খাদ্য , হাঁস ও মুরগীর খাদ্য, পশু খাদ্য আমদানির ক্ষেত্রে কিছু নিয়মাবলী ।। Animale food import procedure in bangladesh

বাংলাদেশ সরকার বিদেশ থেকে মছের খাদ্য , হাঁস ও মুরগীর খাদ্য, পশু খাদ্য আমদানির ক্ষেত্রে কিছু নিয়মাবলি প্রদান করেছে। এসব নিয়ম আপানকে
১০০% মেনে চলতে হবে। অন্যথায় আপনার আমদানি কৃত দ্রব্য কাস্টমস বাজেয়াপ্ত করতে পারে। সেজন্য মছের খাদ্য , হাঁস ও মুরগীর খাদ্য, পশু খাদ্য আমদানির ক্ষেত্রে
এসব নিয়ম মেনে চলবেন।

(১) মছের খাদ্য , হাঁস ও মুরগীর খাদ্য, পশু খাদ্য আমদানির ক্ষেত্রে রপ্তানিকারক দেশের উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ প্রদত্ত তেজষ্ক্রিয়তা পরীক্ষণ সম্পর্কিত প্রতিবেদন
এবং উক্ত মছের খাদ্য , হাঁস ও মুরগীর খাদ্য, পশু খাদ্য, পশুর খাওয়ার উপযোগী মর্মে প্রত্যয়নপত্র, রপ্তানিকারকের শিপিং ডকুমেন্টস এর সাথে বাধ্যতামূলকভাবে থাকতে
হবে এবং উক্ত প্রতিবেদনে  তেজষ্ক্রিয়তা পরীক্ষায় আমদানিকৃত পণ্য জাহাজীকরণ সময়ে প্রতি কিলোগ্রামে (সিজিয়াম-১৩৭) এর মাত্রা কি পরিমাণ পাওয়া
গেছে তা সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ থাকতে হবে।

(২)  (ক) আমদানিকৃত পণ্য যদি মৎস খাদ্য হয় তবে এসব খাদ্য ক্লোরামফেনিকল ও নাইট্রেফিউরান সহ সকল প্রকার ক্ষতিকারক ঔষধ, হরমোন ও স্টেরয়েড মুক্ত
থাকতে হবে;
( খ) মছের খাদ্য , হাঁস ও মুরগীর খাদ্য, পশু খাদ্য আমদানির ক্ষেত্রে প্যাকেট এর গায়ে সকল উপাদানসমূহ উল্লেখ থাকতে হবে এবং উক্ত খাদ্য ক্লোরামফেনিকল,
নাইট্রোফুরান ও এন্টিবায়োটিক এবং মেলামাইন মুক্ত বলে উল্লেখ থাকতে হবে ও  Genetically Modified Organism নাই মর্মে রপ্তানিকারক দেশের
উপযুক্ত কতৃর্পক্ষের সনদপত্র কাস্টমস বরাবর দাখিল করতে হবে। এ ই সকল খাদ্য বন্দরে পৌছার সাথে সাথে আমদানিকারক পণ্যের নাইট্রোফুরান ও এন্টি বায়োটিক পরীক্ষা করাতে হবে।

(৩) উপ - অনুচ্ছেদ
                             (১) উল্লেখিত নিয়ম অনুযায়ী মছের খাদ্য , হাঁস ও মুরগীর খাদ্য, পশু খাদ্যের তেজষ্ক্রিয়তা গ্রহণযোগ সীমার মধে থাকলেই শুধু তা কাস্টমস থেকে ছাড়
                                    করা যাবে, অন্যথায় রপ্তানি কারক নিজ ব্যয়ে সকল পণ্য চালান ফেরত নিতে বাধ্য থাকবে।

(৪) যদি কেউ Meat Bone Meal আমদানি করতে চায় তবে প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তরের পূর্বানুমতিক্রমে আমদানি করা যাবে এবং
Meat Bone Meal আমদানির ক্ষেত্রে উৎস ও প্রাণীর নাম উল্লেখ করতে
হবেঃ তবে শর্ত থাকে যে, শুকরের  Meat Bone Meal আমদানি করা যাবে না ।  Meat Bone Meal আমদানির জন্য আমদানিকারককে রপ্তানিকারী
দেশের উপযুক্ত কতৃপক্ষ হইতে নিম্নলিখিত প্রত্যয়ন পত্র পণ্য খালাসের সময় কাস্টমস কতৃপক্ষের নিকট দাখিল করতে হবে ,
যথা: -
( ক) আমদানিকৃত পন্যটি ক্ষতিকারক এন্টিবায়োটিকসহ ক্লোরামফেনিকল ও নাইেট্রা ফিউরানমুক্ত;
( খ) আমদানিকৃত পণ্যটি শুকরের বাই প্রোডাক্ট মুক্ত;
( গ) আমদানিকৃত পণ্যটি ম্যালামাইনমুক্ত।
(৫) অন্যন্য  প্রাণীর উৎস হইতে উৎপাদিত Meat I Bone Meal আমদানির ক্ষেত্রে রপ্তানিকারক দেশ
Bovine Spongiform Encephalopathy (BSE) , Transmissible Spongiform 26 Encephalopathy (TSE) ,
 এ্যানথ্রাক্স ও টিবিমুক্ত এই মর্মে রপ্তানিকারক দেশের যথোপযুক্ত কর্তৃপে ক্ষর
 সার্টিফিকেট প্রদান করতে হবে ।
(৬) পোল্ট্রি ও পোল্ট্রিজাত শিল্পে ব্যবহারের জন্য রেজিস্টার্ড ভ্যাকসিন ও ডায়গনস্টিক রিএজেন্ট মৎস ও প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তরের
অনুমতিক্রমে আমদানিযোগ্য হবে।

(৭) হাঁস মুরগী ও পাখি আমদানির ক্ষেত্রে Avian Influeuanja মুক্ত মর্মে রপ্তানিকারক দেশের যথোপযুক্ত কর্তৃপক্ষের
 সার্টিফিকেট শুল্ক কর্তৃপক্ষের নিকট দাখিল করতে হবে।
(৮) মৎস বা হাঁস - মুরগী বা পশুখাদ্য  আমদানির জন্য ঋণপত্র খোলার সময় এই অনুচ্ছেদে উল্লিখিত শর্তবলি
এল সি তে উল্লেখ করতে হবে।
(৯) মৎস বা হাঁস - মুরগী বা পশুর খাদ্য আমদানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের বন্দরে পৌঁছার পর তেজষ্ক্রিয়তা মাত্রা পুনরায় পরীক্ষা করার
প্রয়োজন হইবে না।

বিস্তারিত
জীবিত পশু পাখি, মাংস আমদানির ক্ষেত্রে কিছু নিয়মাবলী । Live animal import procedure in bangladesh

বাংলাদেশ সরকার বিদেশ থেকে জীবিত পশু পাখি, মাংস আমদানির ক্ষেত্রে কিছু নিয়মাবলি প্রদান করেছে। এসব নিয়ম আপানকে
১০০% মেনে চলতে হবে। অন্যথায় আপনার আমদানি কৃত দ্রব্য কাস্টমস বাজেয়াপ্ত করতে পারে। সেজন্য জীবিত পশু পাখি, মাংস আমদানির ক্ষেত্রে
এসব নিয়ম মেনে চলবেন।

(১) টিন জাতীয় মোড়কে আমদানিকৃত মাছের ক্ষেত্রে (Canned Fish) মোড়কের গায়ে পণ প্রস্তুত ও মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার তারিখ এবং
প্রকৃত ওজন (নেট ওয়েট) বাংলা বা ইংরেজিতে সুস্পষ্টভাবে এমবুস অথবা অমোচনীয় কালি দ্বারা কম্পিউটারাইজড প্রিন্টিং করা থাকতে হবে এবং পৃথকভাবে
লেবেল ছাপাইয়া মোড়কের গায়ে লাগানো যাবে না।
(২ ) মাছ আমদানির ক্ষেত্রে সংশ্লি ষ্ট রপ্তানিকারক দেশের সরকার বা সরকার কর্তৃকীকত সংশ্লিষ্ট সংস্থা কর্তৃক মাছে ফরমালিন নাই মর্মে সনদপত্র শুল্ক কর্তৃপক্ষের নিকট দাখিল করিতে হইবে।
(৩)  আমদানিকৃত মাছে ফরমালিন ব্যবহার করা হয়েছে কিনা তা সরকারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃক বাংলাদেশের বন্দরে প্রবেশের পর পরীক্ষা
করাইতে হবে এবং ফরমালিন নাই মর্মে প্রত্যয়ন সাপেক্ষে খালাসযোগ হবে।
( ৪ ) গরু, ছাগল ও মুরগীর মাংস ও মানুষের খাওয়ার উপযোগী অন্যান্য পশুর মাংস
আমদানির ক্ষেত্রে মোড়কের গায়ে রপ্তানিকারক দেশের মাংস উৎপাদনের তারিখ ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ এমবুস বা প্রিন্টেড থাকতে হবে এবং তাতে
সংরক্ষণের পদ্ধতি উল্লেখ করতে হবে এবং পৃথকভাবে লেবেল ছাপাইয়া মোড়কের গায়ে লাগানো যাবে না।
(৫) আমদানিকৃত পণ্য Bovine Spongiform Encephalopathy (BSE) এবং Avian influenja মুক্ত মর্মে রপ্তানিকারক দেশের যথোপযুক্ত
 কর্তৃপক্ষের সনদপত্র থাকতে হবে। 
(৬) ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশসমূহ হইতে মাংস আমদানির ক্ষেত্রে “ ম্যাড কাউ ডিজিজ মুক্ত ” মর্মে রপ্তানিকারক দেশের যথোপযুক্ত কর্তৃপক্ষ হইতে প্রত্যয়নপত্র
শুল্ক কর্তৃপক্ষের নিকট দাখিল করতে হবে।
(৭) আমেরিকা ও ইউরোপসহ অন্যান্য দেশ হইতে বোনমিল, মিটমিল ও মিট এন্ড বোনমিলের দ্বারা প্রত্যয়নকৃত প্রোটিন কনসেনট্রেট আমদানির ক্ষেত্রে
রপ্তানিকারক দেশের ভেটেরিনারী কর্তৃপক্ষের নিকট হতে উৎপাদিত পণ্য  কোনভাবেই Transmissible Spongiform Encephalopathy
দ্বারা সংকৃমিত নয় এই মর্মে প্রত্যয়ন পত্র এবং আমদানি কারককে রপ্তানিকারী দেশের উপযুক্ত কতৃপক্ষ হইতে নিম্নলিখিত প্রত্যয়নপত্র শিপিং ডকুমেন্টস
এর সাথে অবশ্যই দাখিল করতে হইবে, যথা: -

( ক) আমদানিকৃত পন্যটি ক্ষতিকারক এন্টিবায়োটিক ক্লোরামফেনিকল ও নাইট্রেফিউরান মুক্ত ;
( খ) আমদানিকৃত পণ্যটি শুকরের বাই প্রোডাক্ট মুক্ত ;
( গ) আমদানিকৃত পণ্যটি ম্যালামাইন মুক্ত
( ঘ) আমদানিকৃত পণ্যটি এ্যানথ্রাক্স ও টিবিমুক্ত।

বিস্তারিত
অল্প পুজিতে লাভজনক ব্যবসা করুন। Cow milk supply business with low investment

হ্যালো ভিওয়ার আজ আমি আপনাদের সামনে একটি নতুন আইডিয়া নিয়ে হাজির হলাম । শহরে মানুষ বাড়ার সাথে সাথে বড়ছে বিভিন্ন খাদ্যের চাহিদা ।
মানুষ এখন ব্যস্ততার জন্য বাহির থেকে সঠিক পুষ্টি গুনের খাবার ঠিক মত ক্রয় করতে পারছেন না । ফলে সকলে রেডিমেড খাবার সাপ্লাই এর প্রতি ঝুকছে।
এসব খাবারের একটি হল নিত্য প্রয়োজনীয় দুধ। যেটা আমরা তরল আকারে দোকান থেকে সংগ্রহ করে থাকি। আর এই সব দুধ নিয়ে আছে নানান কাহিনী।  ভেজালের
ভিড়ে পিউর কোনটা বুঝা দায়। আপনি এই সুযোগ নিয়ে আপনার ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন ।
এটি অনলাই বা অফলাইনের যে কোন মাধ্যমে পরিচালনা করতে পারবেন ।

শহরে গরুর খাঁটি দুধ সরবরাহ ব্যবসার সাথে আমরা প্রায় সকলেই পরিচিত । আর এটির চাহিদা ব্যাপক । সবাই চায় খাঁটি দুধ সংগ্রহ করতে। কিন্তু  মানুষ কাজের চাপ আর
দুরত্তের কারনে এটা সম্ভব হয়না।
এই সুযোগটা কাজে লাগাচ্ছেন অনেকেই। এদের কাজ হল মানুষের বাসায় বাসায় গিয়ে গরুর খাঁটি দুধ সরবরাহ করা । এটি কম পরিশ্রমের একটি সহজ ব্যবসা ।
এতে আপনার পুজি লাগবে এবং লাভ বেশি হবে।
এর জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট স্থানে দোকান দিতে হবে না ।

কিভাবে শুরু করবেন
এ বিজনেটি শুরু করতে আপনি প্রথমে ঢাকার যে কোন একটি জনবহুল এলাকা বেঁছে নিন । এ বিজনেস টি আপনি দুই ভাবে করতে পারেন ।
১. নিজে সরবরাহ করে ২. কোন লোকের মাধ্যমে সরবরাহ করিয়ে। এ বিজনেসটি শুরু করার পূর্বে আপনাকে আবশ্যই মার্কেট সম্পর্কে ভালো আইডিয়া নিতে হবে।
দুধ লিটার কত টাকায় সেল হয়, আগের সেলার কত টাকায় সেল করতো সব আগে থেকে জেনে নিতে হবে।

কোথায় থেকে দুধ ক্রয় করবেন
সাভার , আমিন বাজার, গাজিপুরে প্রচুর ফার্ম আছে । এসব এলাকায় আনেক কম দামে গরুর দুধ বিক্রি হয় আপনি সেখান থেকে ক্রয় করতে পারেন।
তাদের থেকে পাইকারী রেটে সংগ্রহ করতে চেষ্ট করবেন । সব সময় যেখান থেকে আপনি গরুর দুধ সংগ্রহ করবেন খেয়াল রাখবেন আপনার গরুর দুধটি যেন
১০০% ভালো মানের হয় এবং কোন ভাবেই জেন পানি মেশানো না হয় ।

গরুর দুধ কিভাবে সপ্লাই করবেন ।
আপনি যে গরুর দুধ সাপ্লাই করেন এর একটি নাম নির্ধারন করুন । তারপর আপনার শহরের আশাপাশে কিছু বাসায় গিয়ে এটি নাম দিয়ে আসুন এবং
তাদের বলে রাখুন আপনি প্রতিদিন এভাবে সাপ্লাই করবেন । তাছাড়া তাদের আকৃষ্ট করার জন্য প্রথম দিন তাদের অর্ধেক রেটে গরুর দুধ দিতে পারেন ।
আপনি গরুর দুধ সাপ্লাই করার জন্য খালি বোতল দোকান থেকে ক্রয় করতে পারেন এবং তার ভিতর করে দুধ সাপ্লাই দিতে পারেন । তাছাড়া আপনি যদি মনে করেন
আপনি আপনার নির্ধারিত নামে বোতল দিয়ে সাপ্লাই করবেন তাহলে তাহলে তা তৈরি করে নিন । পুরান ঢাকায় আনেক প্রতিষ্ঠান আছে যারা এরুপ বোতল তৈরি করে থাকে ।

সর্তকতা :
সবমসয় লক্ষ রাখবেন আপনার গরুর দুধটি যেন ভালো মানের হয় এবং পরিষ্কার পরিচন্ন হয় । এবং নষ্ট না হয় । আপনি গরুর দুধ সংগ্রহ করার সাথে সাথে তা সাপ্লাই
করে দিবেন । বেশিক্ষন রাখবেন না । তাহলে গরুর দুধ নষ্ঠ হয়ে যাওয়ার সম্ববনা বেশি থাকে । কখনো গরুর দুধ ফ্রিজে রাখবেন না এতে গরুর দুধের গুনগত মান
নষ্ট হয়ে যায় ।

কত টাকা ইনবেষ্ট করতে হবে :
এ বিজনেসটির জন্য আপনাকে তেমন বেশি ইনবেষ্ট করতে হবে না । এটি একটি রোলিং বিজনেস এর মত । আপনি যে টাকা ইনভেষ্ট করবেন তা আবার দিন শেষে
পেয়ে যাবেন। আপনি যদি দৈনিক ৫০ লিটার গরুর দুধ সাপ্লাই করেন এবং প্রতি কেজি যদি আপনি ৫০ টাকা দরে নেন তাহলে আপনার খরচ হবে ২৫০০ টাকা ।
তবে এটি স্থান ভেদে ভিন্ন রকম দাম হতে পারে । মোটামুটি আপনি ৫০ থেকে ৬০ টি বাসায় সাপ্লাই করতে পারলে হবে । আপনি যদি নিজে সাপ্লাই না করেন তাহলে
কর্মী খরচ বাবদ প্রতিদিন আরো ৩০০ টাকা এবং পরিবহন বাবদ ২০০ টাকা মোট আপনাকে ৫ হাজার টাকা প্রথমি আবস্থায় খরচ করলেই হবে । তবে আপনার বিজনেসটি
প্রসরাতার বৃদ্দি পেলে আপনাকে ইনবেস্ট আরো বাড়াতে হবে ।  কিছু কাস্তমার হয়ত সাপ্তাহিক পেমেন্ট করতে পারে।

লাভ লোকসান:
আপনার আসতর্কতার কারনে এ বিজনেসে আপনার লোকসান হতে পারে । তবে এ বিজনেসে আপনি লিটার প্রতি ৪০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত লাভ করতে পারবেন ।
আপনি যদি দৈনিক ৫০ লিটার গরুর দুধ সাপ্লাই করতে পারেন তাহলে আপনি দৈনিক ২০০০ টাকা অনায়সে আয় করতে পারবেন ।
পরিবহন খরচ বা অন্যন্য খরচ বাদে আপনি ১৫০০ টাকা তো লাভ করতে পারবেন । মোটামুটি দৈনিক ৫০ লিটার গরুর দুধ থেকে আপনি ১৫০০ টাকা খরচ বাদে
অনায়াসে আয় করতে পারবেন । এভাবে যদি আপনি ঠিক ঠাক বিক্রয় করেন তাহলে প্রতি মাসে খরচ বাদে ৩০ থেকে ৪০০০০ টাকা আয় করতে পারবেন ।
চেষ্টা করবেন হোম সার্ভিস গুলো ফ্রিতে দিতে । আর যদি না দেন তাহলে চেষ্ট করবেন আপনার পাশের গুলোকে ফ্রিতে হোম সার্ভিস দিতে ।

বিজনেসটির প্রসার :
আপনি যদি মনে করেন আপনার এ বিনেসটির ব্যপক প্রসার ঘটতেচে তা আপনি আনলাইনের মাধ্যমে সেবাটি দিতে পারেন ।
শহরের এমন আনেক প্রতিষ্ঠান আছে যারা আপনাকে এ সিস্টেমটি তৈরি করে দিবে । সব সময় কাস্টমারের কথার প্রতি খেয়াল রাখবেন ।
একটি সঠিক আইডিয়া হতে পারে জীবনের পরিবর্তন ।

বিস্তারিত
alibaba & Import Export expert

আমদানি,রপ্তানি,আলিবাবা নিয়ে যেকোনো সমস্যায় আমাকে ফেসবুকে মেসেজ করুন।

এখানে ক্লিক করুন
© 2020 eibbuy. All Rights Reserved.
Developed By Takwasoft