গাড়ির নাম্বার প্লেট ও প্লেটের বর্ণমালার অর্থ জানেন কি?

গাড়ির নাম্বার প্লেট- আমরা হয়তো অনেকেই জানি না যে, বাইক বা গাড়ির নাম্বার প্লেটের ক, খ, হ, ল ইত্যাদি অক্ষরগুলো কি অর্থে ব্যবহৃত হয়। BRTA-এর অনুমোদিত সকল যানবাহনে নাম্বারপ্লেট ব্যবহারের নিয়ম চালু হয় ১৯৭৩ সালে। আসলে এই নাম্বার প্লেট কি অর্থ বহন করে? নাম্বারপ্লেট অনেক মজার তথ্য বহন করে, যা আমাদের অনেকেরই ধারনা নেই। বাংলাদেশের যানবাহনগুলোর নাম্বারপ্লেটের ফরম্যাট হচ্ছে- ‘শহরের নাম-গাড়ির ক্যাটাগরি ক্রম এবং গাড়ির নাম্বার’।

যেমন, ‘ঢাকা মেট্রো য-১১২৫৯৯। এখানে, ‘ঢাকা মেট্রো’ দ্বারা বোঝানো হয়েছে গাড়িটি ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার আওতাধীন। ‘য’ হচ্ছে শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের গাড়ির চিহ্নকারী বর্ণ। অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আওতাধীন সব গাড়ি ‘য’ বর্ণ দ্বারা চিহ্নিত করা হবে। পরবর্তী ‘১১’ হচ্ছে গাড়িটির রেজিস্ট্রেশন নাম্বার এবং ‘২৫৯৯’ হচ্ছে গাড়ির সিরিয়াল নাম্বার।

সাধারণত বাংলা বর্নমালার ‘অ, ই, উ, এ, ক, খ, গ, ঘ, ঙ, চ, ছ, জ, ঝ, ত, থ, ঢ, ড, ট, ঠ, দ, ধ, ন, প, ফ, ব, ভ, ম, য, র, ল, শ, স, হ অক্ষরগুলো ব্যবহার করা হয়। উপরের প্রতিটি বর্ণ আলাদা আলাদা গাড়ির পরিচয় বহন করে।

চলুন জেনে নিই এগুলো দ্বারা কী বুঝায়ঃ–

ক – ৮০০ সিসি প্রাইভেটকার

খ – ১০০০-১৩০০ সিসি প্রাইভেটকার

গ – ১৫০০-১৮০০ সিসি প্রাইভেটকার

ঘ – জীপগাড়ি চ – মাইক্রোবাস

ছ – মাইক্রোবাস / লেগুনা (ভাড়ায় চালিত)

জ – বাস (মিনি)

ঝ – বাস (কোস্টার)

ট – ট্রাক (বড়)

ঠ – ডাবল কেবিন পিকআপ

ড – ট্রাক (মাঝারী)

বিস্তারিত
বাড়িতে বসে ব্যবসা শুরু করার একটি সফল আইডিয়া (প্রথম পর্ব)

আপনারা যারা বাড়িতে  বসে ব্যবসা করতে চান তাদের জন্য আজকে আলোচনা করবো বাড়িতে  বসে ব্যবসা করা যায় একরকম একটি আইডিয়া নিয়ে । আপনি বাড়িতে  বসে ব্যবসা করতে চাইলে আমাদের এই আইডিয়া নিয়ে কাজ করতে পারেন। আজকের পর্বে বাড়িতে  বসে ব্যবসা করার আইডিয়াতে আলোচনা করবো নার্সারি ব্যবসা নিয়ে । নিচে এই ব্যবসা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো। 

(১) নার্সারি বা চারা উৎপাদনের ব্যবসাঃ


আপনি যদি বাড়িতে বসে আয় করতে চান তাহলে নার্সারি ব্যবসা হতে পারে আপনার জন্য একটি  লাভজনক ব্যবসা। এ ব্যবসাটি শুরু করতে তেমন বেশী ইনবেস্টও জায়গার প্রয়োজন হবে না। চাহিদা সব সময় সমান থাকে। আপনি চাইলে বাড়িতে বসে শুরু করতে পারেন এই লাভজনক ব্যবসাটি।

কিভাবে শুরু করবেন??

প্রথমিক আবস্থায় আপনার বাড়ির আঙ্গিনায় বা অব্যবহৃত স্থানে বা বাড়ির চাদে দিয়ে শুরু করতে পারেন। পানি সরবারহ করা সহজ ও সূর্যের আলো পড়ে এরুপ স্থান নির্বাচন করা ভালো।


কি কি চারা উৎপাদন করা যেতে পারে।

বাংলাদেশে সাধারণত সৃজন বা মৌসুম এর উপর ভিত্তি করে চারা রোপন করা হয়। তাই আপনাকে মৌসুমের প্রতি লক্ষ রেখে  চারা উৎপাদন করতে হবে। এ চাড়া আপনি নার্সারির গুরুত্ব বাড়াতে ফল, ফুল, মসলা, বনজ ও সৌন্দর্যবর্ধক চারাগাছ। 

১. ফলের মধ্যে ঃ পেঁপে, লেবু, পেয়ারা, কাঁঠাল, আমড়া, ডালিম, কুল, আম ও লিচু। ২. সবজি ও মসলা জাতের মধ্যে ঃ বেগুন, টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, মরিচ ও পিয়াজ। ৩. ফুল ও সৌন্দর্যবর্ধকের মধ্যে ঃ গোলাপ, জবা, ডালিয়া, চন্দ্রমল্লিকা, গন্ধরাজ, কামিনী, টগর, রঙ্গন, মুসান্ডা, দেবদারু, পাতাবাহার ও রাবার। ৪. বনজ ও ভেষজের মধ্যে নিম, মেহগনি, সেগুন, রেইনট্রি, কড়ই, অর্জুন, আমলকী, হরীতকী, বহেরা, কৃষ্ণচূড়া,
 কদম ও বট।

(কলম চারা )
একটি নার্সারির গুরুত্ব বাড়াতে কলম হতে পারে এক গুরুত্ব মাধ্যম। তবে কলম চারা তৈরী ভালো মানের গাছ থেকে উৎপাদনের চেস্টা করবেন । উৎপাদন খরচ খুব কম এবং লাভ বেশী।

(বেদেশী চারা )
নার্সারিতে আপনি বিদেশী চারা রাখতে পারেন। যেমনঃ সৌদি খেজুর গাছ (২) থাই পেপে গাছ (৩) ভিনিয়েত নামা নারকেলের চারা ইত্যাদি। চারা উৎপাদন এর ক্ষেত্রে আপনার আশের চাহিদাকে লক্ষ রেখে উৎপাদনের চেস্টা করবেন।

অভিজ্ঞতা।

নার্সারি বা গাছের চারা উৎপাদনে তেমন বেশী অবিজ্ঞতার প্রয়োজন নেই। তবে নতুন কোন সমস্যা বা পরামর্শর জন্য আপনার আশে পাশের কৃষি  কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

ইনভেস্ট।

প্রথমত জায়গা প্রস্তুত করা সেড় তৈরীতে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা লাগতে পারে। বীজ ক্রয় ও পাত্র ক্রয়ে ৫ হাজার টাকা লাগতে পারে। তবে নার্সারি করার ২ থেকে ৩ বছর পর আপনি বীজ উৎপাদন করে তা থেকে চারা উৎপাদন করতে পারবেন। তো সব মিলিয়ে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা ইনবেস্ট করলেই চলবে। তবে ব্যবসার প্রসারের সাথে সাথে   ইনবেস্ট বাড়াতে হবে।

লাভ লোকসান।
এ ব্যবসাতে তেমন লোকসান নেই। ভালো মানের বীজ ও সঠিক পরিকল্পনার অভাবে অথবা সঠিক সময়ে চারা বিক্রি না করতে না পারলে লোকসান হতে পারে। লাভ নির্ধারণ করা  হবে বছরে আপনি কয়বার চারা উত্তলন করলেন এবং কি দামে বিক্রি করলেন এবং কিরুপ বিক্রি করলেন।কারন চারার দাম দেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন এবং বিভিন্ন  সময়ে বিভিন্ন।

বাস্তবতা ও চাহিদা।
বাস্তবিক পক্ষে ভালো প্রচার করতে পারলে  এ ব্যবসাটি বাড়িতে বসে আয় করা সম্বব। মানুষ প্রয়োজনে ও বাড়ির সৌন্দর্য বাড়াতে গাছ লাগাচ্ছে। তাই বলা যায় গাছের চাহিদা সব সময় সমান। কথায় আছে গাছ লাগান পরিবেশ বাচান।

বিস্তারিত
কিভাবে শুরু করতে হয় ডিলারশিপ ব্যবসা ? কিভাবে একটা কোম্পানির ডিলারশিপ নেওয়া যায়? dealership business in bd

বাংলাদেশে অনেক প্রতিষ্ঠিত কোম্পানি আছে ডিলারশিপ দিয়ে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করে থাকে। যে কেউ চাইলে অল্প পরিমাণে টাকা ইনভেস্ট করেও ডিলারশিপ ব্যবসা শুরু করতে পারেন। দেশব্যাপী পণ্য মার্কেটিংয়ের স্বার্থে অনেক বড় বড় কোম্পানি নিজেরা ব্যবসা না করে ডিলারশিপ দেয়ার মাধ্যমে ব্যবসা করে থাকে। কারন সবাই চাইলেই খুব লোকালে গিয়ে ডিলারশিপ না দিয়ে নিজেরা ব্যবসা পরিচালনা করলে অনেক বেশী পরিচালনা ব্যায়ের মুখামুখি হতে হবে। এজন্য সব থেকে সহজ পদ্ধতি হলো স্থানীয়ভাবে ডিলারশিপ নিয়োগ করা ৷ যাতে ডিলারশিপের মাধ্যমে লোকাল এরিয়া কাভারেজ করা যায় ৷


যেমন ধরুন ওয়াল্টন কোম্পানি লোকাল এরিয়াতে তাদের ডিলারশিপ নিয়োগ দিবে, আপনি যদি সে জায়গার স্থানীয় হন, আর ওয়াল্টনের  ডিলারশিপ শর্ত মোতাবেক কাজ করতে চান, তারা আপনাকে সে এলাকার ডিলারশিপের দায়িত্ব দিবে ৷ সেখানে ওয়াল্টনের পণ্য বিপণন থেকে শুরু করে, ভোক্তাকে যে-কোন সুযোগ সুবিধা আপনার মাধ্যমে দেয়া হবে ৷

ডিলারশিপ ব্যবসা করার জন্য প্রাথমিক কাজ
একটা ডিলারশিপ ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে প্রাথমিক ভাবে কিছু কাগজ পত্র থাকতে হবে। যেমন ট্রেড লাইসেঞ্চ, টিন, ভ্যাট । নিজস্ব গোডাউন, মার্কেটিং করার জন্য একজন বা দুই জন মার্কেটিং ম্যান, কাভার ভ্যান,  অফিস ইত্যাদি। সব কিছু ঠিক করে আপনি যখন ডিলারশিপ নেয়ার জন্য আবেদন করবেন তখন কোম্পানি থেকে লোক আসবে আপনার অফিস পরিদর্শনের জন্য। তারা যদি সবকিছু ঠিক পায় তবে আপনি তাদের সাথে ডিলারশিপ ব্যবসা শুরু করতে পারবেন । 



যেমন বাংলাদেশে Bangladesh Honda Private Limited তাদের ডিলারশিপ দেয়ার জন্য নিন্ম লিখিত শর্ত গুলি দেয় । 


Basic Requirements for Bangladesh Honda Private Limited dealership :


Divisional City area Showroom Size:1500-2000 sqft
Showroom Front: 30ft.
Working Capital: 12,000,000 Tk or more.

Thana/Sub-district area Showroom Size:1200-1500 sqft
Showroom Front: 30ft.
Working Capital: 8,000,000 Tk or more.



ডিলারশিপ ব্যবসায় কোম্পানির ভূমিকা
ডিলারশিপ ব্যবসা শুরু করতে উভয়ের পক্ষের কিছু শর্ত থাকে । তবে ডিলারশিপ ব্যবসায় প্রায় কোম্পানির শর্ত থাকে, ডিলার কে সব থেকে কম রেটে পণ্য দিবে,  ডিলারশিপ থেকে ড্যামেজ পণ্য কোম্পানি নিয়ে নিবে । এছাড়া ডিলারশিপ ব্যবসায় বাদবাকি সবকিছু ডিলারকেই করতে হবে ৷ ডিলারশিপ ব্যবসায় কোম্পানিকে ডিলার অগ্রীম জামানত দিতে হয় যে জামানতের পরিমাণ অথবা দ্বিগুন টাকার পণ্য ডিলারকে দেয়া হয় ৷ কিছু কিছু কোম্পানি বাকিতে ডিলারকে পণ্য দিয়ে থাকে  তবে তাদের টাকা পণ্য বিক্রি করে কোম্পানিকে দিতে হবে ৷

ডিলারশিপ ব্যবসায় নতুন অবস্থায় করণীয়

ডিলারশিপ ব্যবসাটা হলো একরকম অন্যের পণ্য আপনি নিজে মার্কেটিং করা । ডিলারশিপ ব্যবসায় নেতৃত্ব একটি বড় বিষয় । ডিলারশিপ ব্যবসা করতে আপনাকে  বিভিন্ন মানুষের সাথে মিশতে হবে ,অল্পতেই মানুষের মন জয় করার মানুষিকটা হলো ডিলারশিপ ব্যবসার মৌলিক বিষয় ৷ তবে ডিলারশিপ ব্যবসায় এরিয়া ভিত্তিক বিক্রয় কর্মী নিয়োগ দেয়া তেমন কঠিন কিছু নয়, সব থেকে বড় বিষয় হলো, নেতৃত্ব, কর্মীদের মন প্রফুল্ল রাখা যাতে তারা আগ্রহ নিয়ে কাজ করে ইত্যাদি ৷

কোন কোম্পানির সাথে ডিলারশিপ ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে যেমন আপনি যে পণ্য নিয়ে কাজ করতে চান, সেটার বাজার কতটুকু, আপনার এলাকার মানুষগুলো সে পণ্য সম্পর্কে কি পর্যন্ত জানে, সেটার মার্কেটিং কিরকম ।  ডিলারশিপ ব্যবসায় আপনাকে স্বরণ রাখতে হবে নতুন একটি পণ্য বাজারে আসলে মানুষ যাচাইয়ের প্রথমে সেটা গ্রহন করতে পারে, তাই বলে সবসময়ই নিবে সেটা কিন্তু নয় । যা হোক এরকম আরো অনেক বিষয় মাথায় রেখে, সঠিক পরামর্শ নিয়ে শুরু করতে পারেন যে-কোন কোম্পানি/ব্রান্ডের ডিলারশিপ ব্যবসা ৷

ডিলারশিপ চুক্তিপত্র বিস্তারিত
মূলত ডিলারশিপ ব্যবসা হলো কোম্পানি সাথে চুক্তি করা, কোম্পানি পণ্য উৎপাদণ করবে, আপনি আপনার এলাকায় মার্কেটিং করবেন ৷ মার্কেটিং করতে এসআর প্রয়োজন হবে, অনেক সময় কোম্পানি এসআর/বেতন দেয় ৷ কোম্পানির সাথে চুক্তির বিষয় হবে এসআর আপনি দিবেন নাকি তারা? যদি কোম্পানি এসআর দেয়,
তবে মাসের শুরুতে বেতন বাবদ পণ্য অগ্রীম পাঠাবে ৷

#কোম্পানি যদি আপনার এরিয়ার এস আর নিয়োগ করে তবে তারা বেতন দিবে, এখানে আপনি ডিপোর কমিশন পাবেন ৷ এটা হবে এমন যে; আপনি টাকা বিনিয়োগ করে, নিজেই তদারকি করলেন, ফলে আপনার টাকা আপনার কাছেই থাকলো ৷ এতে লভ্যাংশের মান বন্টন হবে কর্মী ও মালিক পক্ষ (আপনার) উপর ৷

#কোম্পানি এসআর নিয়োগ না করলে, চুক্তির মাধ্যমে পণ্য এনে, মার্কেটে লোক নিয়োগ করবেন ৷ এতে কর্মীদের বেতন/বোনাস ও অন্যান্য বিল আপনাকে দিতে হবে ৷ কোম্পানি থেকে সরাসরি ডিলার কমিশন পাবেন ৷

#আপনি কিভাবে পণ্য হাতে পাবেন এ বিষয়টি পরিষ্কার করে নিন, সাধারণত পরিবহন খরচ কোম্পানি বহন করে (বিশেষ করে যাদের পিকআপ থাকে) ৷ পণ্য কম/দূরে হলে কুরিয়ারের মাধ্যমে পাঠানো, এখানো খরচ কোন পক্ষ বহন করবে এটা চুক্তির অংশ ৷

#মেয়াদার্ত্তীর্ণ পণ্য-পরিবহনে ক্ষয়-ক্ষতি হওয়া পণ্য কোম্পানি কতটুকু দায় বহন করবে, এবং তা ফেরত দিতে পরিবহনের কোন পক্ষ নিবে ৷ যদিও এটা কোম্পানি বহন করার কথা, তবুও আমদানি করা পণ্যে ডিলারের উপর দায় বর্তায়, কাজেই এই বিষয়ের উপর বিশেষ গুরুত্ব দিতো হবে ৷

#(অনেক সময়) একটি পণ্য জনপ্রিয় হওয়া ডিলারের সমস্যার কারণ; তাই ডিলারশিপের মেয়াদ ও আপনার ডিলারশিপ বাতিলকরণ প্রসঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করতে হবে ৷ যাতে কোম্পানি চাইলেই আপনার ডিলারশিপ বাতিল করত না পারে ৷

#কোন কোম্পানির সাথে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার আগে, সরাসরি অফিসে যান, অফিস গোডাউন ও উৎপাদনের স্থান দেখুন, প্রতিবেশীদের সাথে আলাপ করুন, কোম্পানির হালচাল কেমন, জানার চেষ্টা করুন তাদের ঋণের পরিমাণ কেমন, কর্মীদের ঠিকমতো বেতন দেয় কি না ৷ কেউ পণ্য নিয়ে প্রতারিত হয়েছে কি না ৷ কখোনো
কোম্পানিকে এডভান্স করবেন না, অনেক কোম্পানি টাকা নিয়ে পণ্য তৈরি করে দেয় ৷

ডিলারশিপ ব্যবসায় প্রতারণা
ব্যবসায় লাভ লস আছে, কিন্ত প্রতারণা/প্রতারিত হওয়া ভিন্ন কথা ৷ ডিলারশিপ ব্যবসায় সব থেকে বেশি প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে৷ কারণ সাধারন মানুষ কোম্পানির ডিলারশিপ ব্যবসার আবেদন করে পত্রিকা/টিভির বিজ্ঞাপন দেখে ৷ বর্তমানে অনেক কোম্পানি সোস্যাল সাইটেও ডিলারশিপ ব্যবসার বিজ্ঞাপন দেয় ৷
তবে কিছু মানুষ বেশি কমিশন দেখে ফোনে কথা বলে কন্ডিশনে পণ্যের অর্ডার করে ৷

কুরিয়ারের নিয়ম হলো, পণ্য গ্রহণের আগে খুলে দেখা নিষেধ ৷ আমার দেখা বেশ কিছু ঘটনা আছে যারা টাকা জমা দিয়ে পণ্য উঠালো এবং গোডাউনে এনে খুলে দেখে
সব নকল ও পঁচা যার মূল্য নেই ইত্যাদি ৷

ডিলারশিপ ব্যবসায় শেষ কথা
কোম্পানির সাথে ডিলারশিপের চুক্তি করার জন্য প্রয়োজন সুন্দর একটি ডিলারশিপ চুক্তিপত্র ৷ ব্যবসা স্থায়ী করার স্বার্থে ডিলারশিপ চুক্তিপত্র কপিটি অবশ্যই রেজিষ্টেশন করতে হবে,যাতে কোন পক্ষ সমস্যা না করতে পারে ৷

বিস্তারিত
৫/৭-হাজারে ই-কমার্স ওয়েবসাইট এবং বাস্তবতা ecommerce website in low budget

ইদানিং লক্ষ্য করছি যে ব্যাঙের ছাতার মতো বেশকিছু ফেসবুক বিজনেস পেজ থেকে কম মূল্যে এক কথায় বলতে পারেন যে মাগনাই ই-কমার্স ওয়েবসাইট তৈরী করে দেয়ার ভিবিন্ন লোভনীয় প্রস্তাব দেয়া হয়। ডোমেইন+হোস্টিং এমনকি সাথে গুগলের একদম ফার্স্ট পেজের ফার্স্ট পজিশনে র্যাংক করিয়ে দেয়া।


ওরে ভাইরে ভাই কে তোমরা? গুগল এর মালিক বা সিইও কি তোমাদের দুলাভাই নাকি শশুর লাগে?


ভাই একটা ওয়েবসাইট বানানো ওই হয়-কোর্টের সামনে দাঁড়িয়ে ভিক্ষা করার মতো সহজ বিষয় না যদি কারো কাছে এমন মনেহয় তাহলে ওয়েবসাইট বানানো বাদ দিয়ে ভিক্ষাই করেন তবুও বাংলাদেশ এই ফ্রীল্যান্সিং প্রফেস্সং এবং যারা প্রফেশোনাল তাদের মানসন্মান ডুবাইয়েন না।


একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইটে বানিয়ে দিচ্ছে ৫/৭-হাজার টাকায়। কেমনে ভাই?

মনে তো এই ধরণের প্রফেশনাল এবং তাদের কাজের মান সম্পর্কে অনেক খারাপ চিন্তা-ভাবনা উঁকি মারে। যাইহোক পাবলিক প্লাসে কারো মা-বোন নিয়ে টানাটানি করাটা ভদ্রলোকের স্বভাব-চরিত্র বিরোধী তাই এই বিষয়ে আর কিছু বলতে চাইনা।


আচ্ছা একটি অতি সাধারণ অথবা নিম্নতম মানের ই-কমার্স ওয়েবসাইট বানানোর ক্ষেত্রে নূন্যতম বাজেট কেমন হওয়া উচিৎ। এই ক্ষেত্রে আমি স্ক্রেচ মানে জিরো তো হিরো ধরছি না মানে এইচটিএমএল টু ফুল ফাংশনাল একদম লাইভ ওয়েবসাইট অবগন এসইও কারণ যদি কাস্টম ই-কমার্স ওয়েবসাইট-ডেভেলপ করতে হয় দেন প্রাথমিক বাজেট হবে নূন্যতম ৭০০০/১০০০০-ডলার(স্ট্যান্ডার্ড প্রফেশনাল রেট)।


আমি ধরে নিচ্ছি আপনি রেডি থিম নিয়ে কাজ করবেন।

তো এই ক্ষেত্রে একদম প্রাথমিক যে বিষয়টা আসে সেটা হচ্ছে ডোমেইন এবং হোস্টিং।

ডোমেইন --> ৮৫০/১০০০-টাকায় ধরলাম। (.কম এক্সটেনশন বাধ্যতামূলক)

হোস্টিং --> ই-কমার্সের শেয়ার্ড হোস্টিং চলে না। কেউ যদি শেয়ার্ড হোস্টিংয়ের বিষয় মাথায় আনেন তাহলে আপনি _________ ড্যাস ড্যাস স্থানে আপনার ১৪-গুষ্টি উদ্ধার করা হইছে।

এই ক্ষেত্রে ওয়েবসাইটের মালিক এবং যিনি বানাবেন কেউ ভুল করেও শেয়ার্ড হোস্টিং নিজে কাজ করার বিষয় কল্পনাতেও আনতে পারবেননা।

ই-কমার্সের জন্য আলাদা ডেডিকেটেড হোস্টিং/ই-কমার্স হোস্টিং/ ভিপিস টাইপের হোস্টিং লাগে। এবং এই ধরণের হোস্টিং একটু ব্যয়বহুল। নূন্যতম প্রাইস ভিবিন্ন হোস্টিং সংক্রান্ত ফ্যাসিলিটিজ সহকারে ১-বছরের জন্য দাম হতে পারে নূন্যতম ১০০০০+ টাকা। আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে ই-কমার্স সাইটে ভিজিটর বেশি হয় তাই নরমাল হোস্টিং দিয়ে বানানো সাইট অতিরিক্ত ভিজিটরের চাপে প্রায় সময় ডাউন হয়ে যাবে এবং আপনি কাস্টমার এবং র্যাংকিং ২-তাই হারাবেন।


ই-কমার্স ওয়েবসাইট বা যেকোনো ওয়েবসাইট এর জন্য ফ্রি থিম ব্যবহার না করাটাই সর্বোত্তম আর ই-কমার্সের ক্ষেত্রে এইটা একদম ডাইরেক্ট নিষিদ্ধ বিষযে মধ্যে পরে যায়।

একটি ভালো মানে পেইড ই-কমার্স থিমের দাম নূন্যতম ৫০/৬০-ডলার অর্থাৎ ৪/৫-হাজার টাকা।


এর পরে আসছে সাপোর্টিং প্লাগিনের কথা যেহেতু ই-কমার্স ওয়েবসাইট তাই ইমেজ কমপ্রেস করা এবং ক্যাশিং টাইপের কিছু পেইড প্লাগিন লাগবেই তাছাড়া ই-কমার্স রিলেটেড ভিবিন্ন প্লাগইন-ও লাগতে পারে তো এই ক্ষেত্রেও লাগবে নূন্যতম ৭/১০-হাজার টাকা। স্পিড অপ্টিমাইজেশনের জন্য ডব্লিউপি-রকেট এক প্রকার বাধ্যতামূলক শুধুমাত্র এইটার দাম-ই ৪-হাজার টাকা।


যাইহোক ওয়েবসাইট বানাইলাম এখন ই-কমার্স সাইট বা পৃথিবীর যেকোনো ধরণের সাইটই হোক না কেন কনটেন্ট ছাড়া ওয়েবসাইট মানে আন্ডারওয়্যার ছাড়া সুপারম্যানের মতন। প্রিমিয়াম কনটেন্ট --> ডিটেলেড ডেসক্রিপশন + প্রস এন্ড কন সংক্রান্ত হাই-কোয়ালিটির কন্টেন্ট লাগবেই। এই ক্ষেত্রে ধরেই নিলাম আপনি ইমেজ কোনো ভাবে মাগনাই জোগাড় করে ফেললেন কিন্তু ভুলেও কনটেন্ট কপি করার উপায় নাই ডাইরেক্ট ধরা খাবেন। আর ই-কমার্স সাইটে প্রাথমিক ভাবে হলেও টার্মস-কন্ডিশন-রিটার্ন পলিসি ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ কনটেন্ট সহ অন্যান্য সাপোর্টিং কনটেন্ট বাধ্যতামূলক। ভালো মানের কনটেন্ট দিলেও প্রাথমিক ভাবে অন্তত ৮/১০-হাজার টাকার কনটেন্ট লাগবেই।


এর পরে আসছে যিনি ওয়েবসাইট বানানবেন তার একটা নূন্যতম পারিশ্রমিকের ব্যপার। ধরলাম আপনি উদার তাই মাগনা বানিয়ে দিবেন সো এই ক্ষেত্রে কস্ট ০০-টাকা।


পরবর্তী ধাপ এসইও/মার্কেটিং এবং সোশ্যাল মিডিয়া অপ্টিমাইজেশন। এই বিষয়ে ব্যয়ের প্রসঙ্গ এই মুহূর্তে আন্তে চাচ্ছি না।


আচ্ছা যদি পারিশ্রমিক + এসইও/মার্কেটিং(পেইড/ফ্রি) এবং এসএমএম ব্যাড দিয়ে শুধু ওয়েবসাইটি লাইভ করা পর্যন্ত নূন্যতম খরচের হিসাব করি তাহলে মতো খরচ দাঁড়াচ্ছে নিম্নরূপঃ-

ডোমেইন ১০০০+ হোস্টিং ১০০০০+ থিম ৪০০০+ প্লাগিন ৪০০০+ কনটেন্ট ৮০০০ অর্থাৎ নূন্যতম ২৫/২৬-হাজার টাকার লাগবেই।


তারপরেও আমি পারিশ্রমিক এবং পরবর্তীত সব ধরণের কস্ট বাদ দিয়েছি।

মানুষ কিভাবে ৫/৭-হাজার তাকে ই-কমার্স ওয়েবসাইট বানায় আমি বুঝিনা।

এই টাকায় যারা ওয়েবসাইট বানায় এবং যারা কিনে উভয়েই ঘোড়া রোগে আক্রান্ত মানে বাস্তবে পান্তা জোটে না কিন্তু খাইতে চায় অলওয়েজ ৭-তারা হোটেলে।


ধন্যবাদ সবাইকে।

বিস্তারিত
ব্যাবসা শুরু করার আগের প্রস্তুতি

যারা ইতিমধ্যে ব্যাবসা করার পরিকল্পনা নিয়ে ফেলেছেন তাদের কে অসংখ্য ধন্যবাদ কেননা অর্থ উপার্জনের ক্ষেত্র ব্যাবসার মত হালাল কর্ম আর দ্বিতীয়টি নেই। তবে হ্যাঁ, সব কিছুর হুট-হাট করে করলে বেশিরভাগ সময় ফল টা খারাপ আসে, তাই শুধু ব্যাবসা না যেকোন কিছু করার আগেই আমাদের প্রয়োজন দীর্ঘ পরিকল্পনা।
 

কোন ব্যবসা করবেনঃ
আগে ঠিক করুন আপনি কি ধরনের ব্যাবসা করতে চান। কি ধরনের ব্যাবসা করবেন এটি মূলত #মূলধন আর দক্ষতার উপর নির্ভর করবে।
# মূলধনঃ আপনার মূলধন এর উপর নির্ভর করবে, আপনি কি ধরনের ব্যাবসা করতে চান। প্রথমিক ভাবে আপনার যে মূলধন আছে সেটি দিয়েই যে ব্যবসা করতে চান সেটি ছোট করেই শুরু করুন, ব্যবসার বাজার আর পরিবেশ সম্পর্কে ভালো ধারনা এসে গেলে, প্রয়োজনে পরিবারের লোকজনের কাছে থেকে/ ব্যাংক লোন নিয়ে ব্যবসার পরিধি আস্তে আস্তে বাড়াতে পারেন।
মনে রাখবেনঃ  হালাল ব্যাবসায় কোন শর্ট-কার্ট নেই। তাই ধৈর্য ধরে আস্তে আস্তে সামনের দিকে আগান।

Highly recommended: ৫,০০০৳ ব্যবসা শুরু করুন
Highly recommended: তিনটি ক্ষুদ্র লাভজনক ব্যাবসার আইডিয়া
 

# দক্ষতাঃ  ব্যবসা শুরু করার জন্য অবশ্যই ব্যবসার একটি লাইন সম্পর্কে ভালো জ্ঞান থাকতে হবে। যে ব্যাবসাটি আপনি করতে চাচ্ছেন, সেটির বাজার কেমন এই নিয়ে বিশ্লেষণ করতে হবে। প্রয়োজনে আপনার মনস্থির করা ব্যবসা টি যারা যারা করছেন, তাদের সাথে সু-সম্পর্ক বজায় রেখে, তাদের কাছ থেকে নানা ধরনের তথ্য সংগ্রহ করতে হবে। যত বাজার গবেষণা ও তথ্য সংগ্রহ করবেন তত লোকসান এর ঝুকি কমে যাবে।
উদাহরণঃ যদি কেউ চিন্তা করে যে সে চকোলেটের ব্যবসা করবে তাহলে তার যে সম্পর্কে জ্ঞান থাকতে হবেঃ
১. চকোলেট কয় ধরনের, কত প্রকার, কোন কোন দেশ প্রস্তুতকারক, সেদেশ থেকে কিভাবে আনতে হয়।
২. ঝুকি।
৩. বাজারজাতকরণ।
৪. লাভ করার মেকানিজম।
এসব জানতে হলে অবশ্যই চকোলেটের ব্যবসায়ীদের সাথে নিদেনপক্ষে ৫বছর ফ্রি সার্ভিস দিতে হবে। আমার পরিচিত কিছু চামড়া ব্যবসায়ী আছেন যারা লেদার টেকনোলজি থেকে পাশ করে নাই কিন্তু চামড়া ব্যবসাতে ব্যপক উন্নতি করেছে। এদের অতীত হচ্ছে এরা ট্যানারীতে কাজ করতে করতে ব্যবসায়ী হয়েছে।
আপনাকে ৫ বছর সার্ভিস দিতে হবে, আপনি কয়েকমাস উপরোক্ত কাজগুলো করেন, তাহলে আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন যে, আপনার মনস্থির করা ব্যাবসা টি আপনার জন্য লাভজনক হবে নাকি লোকসান এর মুখ দেখতে হবে।

মন সেটয়াপঃ উপরের ধাপগুলোর পর সেই স্টেপ টি অনেক গুরুত্ব বহন করে সেটি হল, মন কে ঐ কাজের প্রতি ধাবিত করা(সেই ব্যাবসা টি করতে চাচ্ছেন)। এই মন সেটাপ এর গুরুত্ব আমি অনেক বেশি মনে করি, কেননা আপনি অনেক টাকা খরচ করে একটি ব্যাবসা শুরু করলেন কিন্তু কিছুদিন না যেতেই আপনার ব্যাবসা টি ভালো লাগছে না বা আরেকটি ভালো ব্যাবসার দিকে নজর পড়েছে। সেক্ষেত্রে আপনি অনেক টাকার ক্ষতির সম্মুক্ষীন হতে পারেন, তাই ভাল করে সিদ্ধান্ত নিন, এবং মন কে সেটআপ করুন , আপনি যে ব্যাবসা টি করছেন এটাই আপনার জন্য বেস্ট, এটাই আপনার সাফল্যের চাবি কাঠি। নতুন কোন ব্যাবসা যুক্ত করতে চাইলে/ অন্য ব্যবসায় যেতে চাইলে, ধীরে সুস্থে আগের ব্যাবসা ত্থেকে সময় নিয়ে নতুন ব্যবাসায় আসুন, এতে লোকসান এর পরিমাণ কম হবে আবার বা কোন ক্ষেত্রে এক পয়সাও লোকসান হবে না।
আর্টিকেল টি ধৈয্য সহকারে পড়ার জন্য ধন্যবাদ। আর্টিকেল টি শেয়ার এর মাধ্যমে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন।

বিস্তারিত
বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় অনলাইন পাইকারি বাজার big online wholesale market bangladesh
বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় অনলাইন পাইকারি বাজার  eibbuy.com এ আপনাকে স্বাগতম।
আমারা যারা অনলাইনে কেনা কাটা করতে ভালবাসি তারা খুচরা পণ্য পাইকারি দামে কিনতে ভালবাসি। বাংলাদেশে এখনো অনলাইনে কোন উল্লেখযোগ্য  পাইকারি বাজার গড়ে উঠেনি । যে বাজার কে আমরা বি টু বি মার্কেট বলতে পারি। যেমন চায়নার আলিবাবা ।  তবে বাংলাদেশে অনেক ওয়েবসাইট অনলাইন পাইকারি বাজারের সেবা দিয়ে থাকে কিন্তু তারা পিউর অনলাইন পাইকারি বাজার সেবা এখনো দিতে পারেনি।
বি টু বি ওয়েবসাইটের নামে তারা নিজেরাই পণ্য সেল করতেছে । যেটা তখন আর বি টু বি পর্যায়ে থাকেনা। এটা তখন বি টু সি হয়ে যায়। এটার একমাত্র  কারন হচ্ছে একটা বি টু বি ওয়েবসাইটের এত খরচ দিয়ে কেউ চালাতে চায়না। সবাই চায় নগদ কিছু আয় করতে। কিন্তু বি টু বি ওয়েবসাইটে আয় করতে  অনেক সময় লাগে। ফলে ওয়েবসাইট তৈরি কারকরা নিজেরাই পণ্য বিক্রি শুরু করেন।  বাংলাদেশে বি টু বি ওয়েবসাইট বা অনলাইন পাইকারি বাজারের ধারনা নিয়ে আমরাই প্রথম শুরু করেছি eibbuy.com ওয়েবসাইট ।

কিভাবে কাজ করে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় অনলাইন পাইকারি বাজার  eibbuy.com ?

আমরা নিজেরা কোন ধরনের পণ্য এই ওয়েবসাইটে খুচরা বিক্রি করিনা ৷ আমরা অফলাইন, ই-কমার্স খুচরা ব্যবসায়ীদের পাইকারি পন্য সোর্সিং করতে সাহয্য করি ৷ আমাদের ওয়েবসাইটে বিভিন্ন সাপ্লায়ারগণ তাদের উৎপাদিত পণ্যের বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে । আর ক্রেতারা সরাসরি সাপ্লায়ারদের সাথে যোগাযোগ করে পণ্য  ক্রয় করে থাকেন।

আমাদের ওয়েবসাইটে যে কেউ তার উৎপাদিত পাইকারী পন্যের বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন ৷ এ ছাড়া আপনি যদি উৎপাদন কারী হয়ে থাকেন তবে আপনার  উৎপাদিত পন্যের বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন আমাদের অনলাইন পাইকারি বাজারে টোটালি ফ্রী তে ৷ কোন বাৎসরিক চার্জ বা মাসিক চার্জ নেই ।  ক্রেতারা সাপ্লায়ার বা উৎপাদনকারীর সাথে সরাসরি যোগাযোগ করে পন্য ক্রয় করতে পারবে ৷ আমরা কোন ধরনের মধ্যস্থতা বা হস্তক্ষেপ করবো না ৷  আপনাদের ব্যবসা আপনারা করবেন ৷ টাকা পেমেন্ট হতে পন্য পরিবহন সবকিছু নিজেদের দায়ীত্বে করতে হবে ৷ আমাদের ওয়েবসাইটের কাজ হলো ক্রেতা বিক্রেতার মিলন ঘটানো। এর পর ব্যবসা ক্রেতা বিক্রেতা দুজনে করবে।

কেন ক্রয় বিক্রয় করবেন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় অনলাইন পাইকারি বাজার  eibbuy.com এ ?
অনলাইন পাইকারি বাজারে আমাদের ব্যবসা এখন অনেকটা ফেসবুকের মন মর্জির উপর নির্ভরশীল ৷ ফেসবুক ইচ্ছা করলে আমাদের লক্ষ উদ্যোক্তাকে মুহুর্তেই থামিয়ে  দিতে পারে ৷ বর্তমানে রিচ না হওয়া, কাঙ্খিত লাইক না পাওয়া, পেজ হ্যাক হওয়া ইত্যাদি ফেসবুকে প্রধান সমস্যা ৷ এই সমস্যার কোন সমাধান আমাদের কাছে নাই । লাখ লাখ টাকা খরচ করে ফেসবুকে একটা পেজ তৈরি করে কোন ভাবে পেজ হ্যাক করা হলেই আপনার সকল ব্যবসা শেষ।  বাংলাদেশে ফেসবুকের কোন অফিস নাই কোন কমপ্লেইন করার ও যায়গা নাই পণ্ডিতেরা অলগারিদম করে করে ছিল্লায় বাস্তবিক পক্ষে কোন আলগারিদম ই নাই ফেসবুকে ।
যেভাবে মন চায় সেভাবে তারা টাকা কাটে । যদি বলেন এটা কেন হলো ? বলবে এটা ২০২০ সালের নতুন অলগারিদম। আর ফেসবুকে কোন কিছু না বুঝেই ফ্রি ব্যবসা  শুরু করার লোকের অভাব নাই । ফলে ফেসবুকের মার্কেট পুরাপুরি অনিয়ন্ত্রিত।

ঠিক এ কারনেই আমাদের অনলাইন পাইকারি বাজার  eibbuy.com একটি ভবিষ্যৎ বিকল্প সামাধান ৷
একটা উদাহরন দেখুন, চায়নাতে ফেসবুক, গুগল, ইউটিউব, জিমেইল কিছুই নাই, কিন্তু তারা আলিবাবা প্রতিষ্ঠা করে সারা বিশ্বে অনলাইনে পন্য বিক্রি করে । ফেসবুকের ফালতু অলগারিদমের কবলে পড়ে তারা অতিষ্ঠ না ৷ আলিবাবাতে সমস্যা হলে চায়নিজরা সরাসরি আলিবাবার অফিসে যোগাযোগ করে সমাধান করতে পারে । আমরাও চাই আমাদের ওয়েবসাইটে আলিবাবার মত লোকাল মার্কেটে উৎপাদিত পণ্য ক্রয় বিক্রয় হোক ৷ ফেসবুক কেন আমাদের ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করবে ?
আমাদের ব্যবসা আমরাই নিয়ন্ত্রণ করবো।

তবে একটা ওয়েবসাইট খুলেও অনেক প্রতিষ্ঠান অনলাইন পাইকারি বাজারে পণ্য বিক্রি করে থাকে ৷ কিন্ত সমস্যা হলো তারা অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠান ৷
যেমন চাল ডাল, দারাজ, ই ভ্যালি ৷ এরা কোটি কোটি টাকা বিজ্ঞাপনের পিছনে খরচ করে ৷ আবার সাপ্লায়রের বিক্রি থেকে একটা লভ্যাংশ তারা রেখে দেয় ৷  এক্ষেত্রে অনেক সময় সাপ্লায়ারের পেমেন্ট করতেও ওরা সময় নেয় ৷ আবার ক্যাশ অন ডেলিভারি দিতে গিয়ে তারা পন্যের রিটার্ন করে ৷  আবার মাল্টি ভেন্ডর সাইটে সাপ্লায়ারের উপর ওয়েবসাইটের কন্ট্রোল কম থাকে বিধায় একজন সাপ্লায়ার খারাপ পন্য বিক্রি করলে সবাই এই দোষের দায়ভার  গ্রহন করতে হয় ৷ যেমন দারাজ বর্তমানে কাষ্টমারের নেগেটিভ ফিডব্যাকের সম্মুখিন ৷ যেটার জন্য মাল্টি ভেন্ডররা দায়ী ৷ এসব সমস্যার একমাত্র সমাধান আপনার নিজস্ব একটা অনলাইন স্টোর । যে স্টরের নিয়ন্ত্রণ সম্পূর্ণ আপনার নিজের হাতেই থাকবে।

আমাদের অনলাইন পাইকারি বাজার  eibbuy.com এর প্রত্যেকটা স্টরের সকল নিয়ন্ত্রণ সাপ্লায়রের হাতে। নিজের পণ্য নিজেই ক্রয় বিক্রয় করতে পারবেন।  কোন ভাবে ওয়েবসাইট কাছে দায়বধ্যতা নেই। ওয়েবসাইট নিয়ে যে কোন ঝামেলা হলে আমরা আপনাদের পাসেই আছি।

আমাদের ভবিষ্যৎ ইচ্ছা হলো বাংলাদেশের প্রত্যেকটি গ্রামকে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটের আওতায় নিয়ে আসবো ৷ যেখানে প্রত্যেকটি উৎপাদনকারী তাদের উৎপাদন কৃত পন্য পাইকারী দরে  সারা বাংলাদেশে বিক্রি করতে পারবে ৷ আর ব্যবসায়ীগণ তাদের পণ্য  আমাদের অনলাইন পাইকারি বাজার  eibbuy.com থেকে ক্রয় করতে পারবে।
বিস্তারিত
পাইকারি ব্যবসার কথা ভাবছেন ? কিভাবে পাইকারি ব্যবসা শুরু করবেন ?

যারা অল্প মূলধন নিয়ে খুচরা ব্যবসা করেন তারা কোন ভাবে মূলধন জোগাড় করতে পারলে পাইকারি ব্যবসা শুরু করতে পারেন।
পাইকারি ব্যবসা শুরু করতে আপানকে খুচরা ব্যবসার থেকেও বেশী মূলধন জোগাড় করতে হবে। পাইকারি ব্যবসার মুল সূত্র হলো বিক্রি বেশী কিন্তু লাভ কম। যেমন আপনি যদি কনো পণ্যে খুচরা বিক্রি করে ১০ টাকা লাভ করেন সেই পণ্য পাইকারি বিক্রি
করলে ১ টাকা লাভ করতে পারবেন। তবে খুচরা দোকানে আপনি হয়তো সেই পণ্য ৫ পিস বিক্রি করতে পারবেন কিন্তু পাইকারি বিক্রেতা সেখানে ৫০০ পিস বিক্রি করবে।

কিভাবে একটা পণ্যের পাইকারি ব্যবসা শুরু করা যাবে?
একটা পণ্যের পাইকারি ব্যবসা শুরু করার জন্য পণ্যের সোরচিং টা খুব জরুরি। পাইকারি ব্যবসার পণ্য আসে দুই উৎস থেকে।
বিদেশ থেকে আমদানি করে অথবা বাংলাদেশি উৎপাদনকারীদের থেকে ক্রয় করে। ব্যবসা শুরু করার আগে আপনি অবশ্যই
খোজ করে নিবেন কারা আপনাকে পণ্য সরবরাহ করবে। পাইকারি ব্যবসাতে আপনাকে বাকিতে পণ্য বিক্রি করতে হবে। একটা
উদাহরন দিলে আপনি বুঝতে পারবেন। যেমন খেজুর বাদামতলিতে পাইকারি বিক্রি করা হয়। আপনি জদি সেখানে খেজুর পাইকারি বিক্রি করে ব্যবসা করতে চান তবে আপনাকে হয়তোবা খেজুর আমদানি করতে হবে অথবা কোন আমদানিকারকের থেকে কিনে নিতে হবে। ব্যবসা শুরুর আগে আপনার পণ্যের উৎসটা ভালো করে খুঁজে নিতে হবে। পাইকারি ব্যবসাতে অনেক বেশী প্রতিযোগিতা থাকে। খুব সাবধানে আপনাকে ব্যবসা শুরু করতে হবে। মন চাইলেই আপনি এই ব্যবসা ছেড়ে দিতে পারবেন না। কারন এখানে আপনাকে অনেক বেশী টাকা ইনভেস্ট করতে হবে। যদি ব্যবসা ছেড়ে দেন তবে লসও অনেক বেশী হবে।

কিভাবে পাইকারি ব্যবসার পণ্য নির্বাচন করবেন ?
পাইকারি ব্যবসা করার জন্য সবচেয়ে গুরত্বপুর্ণ হলো পণ্য নির্বাচন করা । আপনি চাইলেই যে কোন পণ্য নিয়ে পাইকারি ব্যবসা শুরু করতে পারবেন না।
একটা পণ্য নিয়ে পাইকারি ব্যবসা শুরু করতে আপনাকে অনেক কিছু বিবেচনায় আনতে হবে।

১। আপনার  প্রতিদন্ধি কারা ।
পাইকারি ব্যবসার পণ্য নির্বাচন করার আগে আপনাকে অবশ্যই আপনার প্রতিদন্ধি কারা এটা ভালো করে জানতে হবে। উদাহরন স্বরূপ বলা যায় বাদামতলিতে আপনি ফল পাইকারি বিক্রির ব্যবসা শুরু করতে চান । আপনি যদি চিন্তা করেন আপনি ফল আমদানিকারকদের থেকে কিনে বাজারে সরবরাহ
করবেন তাহলে আপনি ধরা খাবেন। কারন সেখানে অধিকাংশ বযবসায়িরাই আমদানিকারক। ফলে আপনাকে ফল আমদানি করে বিক্রির ছিন্তা করতে হবে। এবার কেবল আমদানি করলেই হবেনা, আমদানির পরিমান টাও জানতে হবে, কোন দেশে উৎপাদন হয় সেটাও জানতে হবে। কারন আপনার নির্বাচিত পণ্য যদি কেউ মাসে ১০ কন্টাইনার আমদানি করে আর আপনি করেন ১ কন্টাইনার, তাহলে আপনি কম দামে আমদানি করতে পারবেন না।
সুতরাং আপনাকে অবশ্যই কম প্রতিযোগিতা পূর্ণ পণ্য নিয়ে  পাইকারি ব্যবসা শুরু করতে হবে।

২। পণ্যের দাম
পাইকারি ব্যবসার পণ্য নির্বাচন করার আগে আপনাকে পণ্যের দাম জেনে নিতে হবে। কারন যত দামি পণ্য তত বেশী মূলধন বিনিয়গ করতে হবে।
আপনি যদি কম দামি পণ্য নিয়ে পাইকারি ব্যবসা শুরু করতে চান তবে কম দামি পণ্য নিয়ে শুরু করতে পারেন।

বিস্তারিত
চীন থেকে আমদানি বন্ধ থাকলে বাংলাদেশর কি কি ক্ষতি হতে পারে ?

চীনের বর্তমান এ পরিস্থিতি যদি আরো দুইমাস চলতে থাকে তাহলে বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্প অর্ধেক ধ্বসে যাবে। উন্নয়নশীল, মধ্যম আয়ের দেশগুলো বড়সড় ধাক্কা খাবে। কি রকম..?


চীন থেকে আমদানি বন্ধ থাকলে বাংলাদেশর পণ্যের দাম বাড়তে পারে দ্বিগুণ। কারণ চীন থেকে বাংলাদেশ প্রতি বছর গড়ে ১৫ বিলিয়ন ডলার আমদানি করে। এর মধ্যে আছে ঔষধ তৈরির কাচামাল, গার্মেন্টস শিল্পের কাঁচামাল, ইলেক্ট্রনিক পণ্য, যন্ত্রপাতি, আসবাবপত্র ইত্যাদি..!!


ঔষধ শিল্পঃ

চীনে আরো সপ্তাহখানেক যদি এ অবস্থা চলে তাহলে ইউরোপের কোনো দেশ বা অন্য কোথাও থেকে আনতে হবে এসব কাঁচামাল। সেক্ষেত্রে উৎপাদন খরচ হবে দ্বিগুণের বেশি। যার প্রভাব পড়বে ওষুধের দামের ওপর..!!


গার্মেন্টস শিল্পঃ

বাংলাদেশের গার্মেন্টস খাত এগিয়ে যাওয়ার সবচেয়ে বড় কারণ হলো সস্তা শ্রমবাজার ও কাঁচামাল। বোতাম, সুতা থেকে শুরু করে আমাদের গার্মেন্টস শিল্পের ৯৯% কাঁচামাল ও মেশিনারিজ আসে চীন থেকে। তারউপর বর্তমানে প্রতিদ্ব’ন্দ্বিতাপূর্ণ বাজার ও আন্তর্জাতিক নানা চাপ, চীনের কাচামাল সরবরাহ বন্ধ থাকলে গার্মেন্টস শিল্পের ধ্বস তলানিতে গিয়ে ঠেকতে পারে..!!


ইলেক্ট্রনিক্স পণ্যঃ

আমাদের দেশের ইলেক্ট্রনিক্স যত পণ্য আছে, এগুলোর প্রায় সবগুলোর ই যন্ত্রাংশ আসে চীন থেকে। এমনকি ওয়ালটনের টিভি, ফ্রিজসহ যাবতীয় সকল পণ্যের যন্ত্রাংশ চীন থেকে আনা হয়। একই অবস্থা দেশের অন্য ব্র্যান্ডগুলোরও। মাসখানেক চীন থেকে পণ্য আসা বন্ধ থাকলে টিভি ফ্রিজসহ বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক্স পণ্যের দাম কয়েকগুণ বেড়ে যেতে পারে..!!


কসমেটিকসঃ

বাংলাদেশের কসমেটিকের বড় একটা বাজার সয়লাব করে আছে চায়নিজ কসমেটিক পণ্যে। দেশের বাজারে যে লিপস্টিক ৫শ থেকে ৬শ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে, চীন কয়েকসাপ্তাহ বাণিজ্য বন্ধ রাখলে, একই পণ্যের দ্বিগুণ দাম হতে পারে..!!


এছাড়া, প্লাস্টিক ও আসবাবপত্র কোম্পানিগুলোও চীন থেকে কাচামাল সরবরাহ করে। খেলনা, খাদ্যপণ্য, দুধ ও কোটাজাত পণ্য ইত্যাদি চীন থেকে আমদানি করতে হয়..!!


চীনের এ পরিস্থিতিতে লাভবান হবে কোন দেশ..?


বিশেষ করে ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম, ভারত এসব দেশ লাভবান হবে। এর কারণ, চীন তাঁদের উৎপাদন ব্যয় কামতে ৩৩% গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রি ভিয়েতনামে সরিয়ে নিয়েছে। এছাড়া (EU) সঙ্গে ভিয়েতনামের ফ্রিট্রেড চুক্তি (এফটিএ) হওয়ায় সল্পমূল্যে পণ্য রপ্তানিতে ভিয়েতনাম এগিয়ে যাবে আরো একধাপ..!!


এছাড়া ফিলিপাইন ইউরোপ আমেরিকার নিকটবর্তী হওয়ায় সেসব দেশথেকে তাঁদের প্রয়োজনীয় কাচামাল সরবরাহ করতে পারবে। যেটা বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ব্যয় সাধ্য হয়ে পড়বে..!!


এছাড়া ভারত দিনদিন তুলা চাষে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ায়, লোয়েস্ট মজুরী খরচ এবং প্রয়োজনীয় কাচামাল নিজেরাই উৎপাদনে আসায় তাঁদের গার্মেন্টস শিল্প এক ধাপ এগিয়ে যেতে পারে। তারউপর ভারতের সঙ্গে বহিঃ বিশ্বের কূটনীতিক তৎপরতা ভালো হওয়ায়, এ সুযোগ ভারত হাতছাড়া করবেনা বলেও ধারণা আছে...!!


বিশ্বের প্রায় প্রতিটি উন্নয়নশীল দেশের অর্থনীতি প্রায় থমকে গেছে। চীনের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধ থাকা সত্বেও আমেরিকা চীনকে সহায়তার জন্য এগিয়ে এসেছে..!


কেবল বাংলাদেশ ও দেশের জনগণ অনেকটা সস্তিতে আছে। চীনাবাসীর উপর এ 'গজব' ধর্মপ্রাণ মুসলিমদের জন্য বড়ই সুখের ও আনন্দের ব্যাপার..!!


কিন্তু যাদের উপর নির্ভর করে বিশ্ব অর্থনীতির চাকা ঘুরে, তাঁদের দুর্ভোগ মানে, সারাবিশ্বের জন্য গজব..!!


চীন কেবল একটি দেশ নয়। চীন হলো একটি বাজার। বাজার বন্ধ হওয়া মানে, খাবার কেনা বন্ধ..!!

বিস্তারিত
বাংলাদেশে গত ১০ বছরে ১০ জন সফল উদ্যোক্তা

কামাল কাদির, যিনি কিনা বিকাশের স্বপ্নদ্রষ্টা। এর আগে তিনি সেলবাজার.কম এর প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। বাংলাদেশের মোবাইল ব্যাংকিংয়ের প্রায় ৭০ ভাগ বিকাশের দখলে আছে।

রাইসুল কবির, যিনি কিনা ব্রেইনস্টেশন ২৩ এর প্রতিষ্ঠাতা। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটি নেদারল্যান্ডস, কানাডা, সুইজারল্যান্ড, ডেনমার্ক, যুক্তরাজ্য, ইসরাইল সহ বিশ্বের নানা জায়গায় সফটওয়্যার নিয়ে কাজ করছে।

হুসেইন এম ইলিয়াস, পাঠাও এর সহ প্রতিষ্ঠাতা। পাঠাও বাংলাদেশে রাইড শেয়ারিং সিস্টেমে এক বিপ্লব বয়ে এনেছে। বর্তমানে এটি নেপালেও সার্ভিস চালু করেছে।

কাওসার আহমেদ, জুমশেপারের প্রতিষ্ঠাতা। জুমলাভিত্তিক শীর্ষ চারটি কোম্পানির একটি হল জুমশেপার। ২০১৬ সাল নাগাদ তাদের ৪.৫ মিলিয়ন টেম্পলেট ডাউনলোড হয়েছে।

মাহমুদুল হাসান সোহাগ, অন্যরকম গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা। উদ্ভাস কোচিং দিয়ে শুরু করে রকমারি.কম, টেকশপ বিডি, অন্যরকম ইলেকট্রনিক্স থেকে শুরু করে বেশ কয়েকটি কোম্পানি রয়েছে এই গ্রুপের ভেতর।

মালিহা এম কাদির, সহজের প্রতিঠাতা। সহজ এপে টিকেট দিয়ে শুরু করলেও এখন রাইড শেয়ারিং সহ নানা সার্ভিস প্রদান করছে।

ফাহিম মাশরুর, বিডিজবস, আজকের ডিল এর প্রতিষ্ঠাতা। বাংলাদেশের অন্যতম উদ্যোক্তা। চাকরির জন্য সবচেয়ে বড় পোর্টাল বিডিজবস ও ইকমার্স আজকের ডিল বাংলাদেশের দুটি বড় অনলাইন প্রতিষ্ঠান।

আয়মান সাদিক, টেন মিনিট স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা। টেন মিনিট স্কুল বাংলাদেশের অনলাইন শিক্ষা ব্যবস্থায় এক নতুন মাত্রা এনে দিয়েছে। এছাড়াও তিনি শিক্ষা বিষয়ক নানা ভিডিও বানান ও বই লিখে থাকেন।

হাবিবুল মোস্তফা, খাস ফুডের সহ প্রতিষ্ঠাতা। নিরাপদ ও স্বাস্থসম্মত খাদ্যের জোগান দিচ্ছে এই প্রতিষ্ঠানটি।

আদনান ইমতিয়াজ হালিম, সেবাএক্সওয়াইজেড এর প্রতিষ্ঠাতা। ২০১৮ সালে ১৬০০ সার্ভিস প্রভাইডার সফলভাবে ৬০ হাজারেরও বেশি সার্ভিস প্রদান করে সেবা এপের মাধ্যমে।

ওয়াসিম আলিম, চালডাল.কমের প্রতিষ্ঠাতা। নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস হোম ডেলিভারি সার্ভিস দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিপ্লব ঘোষ রাহুল, ই কুরিয়ারের প্রতিষ্ঠাতা। কুরিয়ার ভিত্তিক সেবা দিয়ে থাকে প্রতিষ্ঠানটি। বিদেশী বিনিয়োগও পেয়েছে সম্প্রতি কাজের জন্য।

ইরাজ ইসলাম, নিউজক্রেডের সহপ্রতিষ্ঠাতা। কনটেন্ট মার্কেটিং নিয়ে কাজ করে থাকে প্রতিষ্ঠানটি। বিশ্বের নামকরা অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের সার্ভিস গ্রহণ করে থাকে।

খোবাইব চৌধুরী, স্টাইলাইন কালেকশনের প্রতিষ্ঠাতা। বাংলাদেশে মেয়েদের ইসলামিক পোশাকের জন্য সবচেয়ে বড় প্লাটফর্ম হচ্ছে স্টাইলাইন।

আহমেদ এডি, হাংরি নাকির সহ প্রতিষ্ঠাতা। হোম ফুড ডেলিভারি সার্ভিসে বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠান।

তথ্য সূত্র bn.quora.com

বিস্তারিত
প্রতিদিন ১০ মিনিটের জন্য এই কাজটি করতে পারেন যা আপনার জীবন বদলে দেবে

আপনি কি ভেবেছেন প্রতিদিন ১০ মিনিটের জন্য কি কাজ করতে পারেন যা আপনার জীবন বদলে দেবে ? আমার মতে প্রতিদিন ১০ মিনিট আপনি অপরিচিত মানুষের সাথে কথা বলুন। দেখবেন আপনার জীবন বদলে গেছে। আসুন বিস্তারিত জানা যাক ।


পাবলিক পরিবহনে সহযাত্রীপ্রতিদিনের দোকানীরাস্টোর মালিকরাপ্রহরীআপনার অফিসের পিয়নট্যাক্সিচালকআপনার সাথে যে কারও দেখা হবে


মনে রাখবেন, নিজের সম্পর্কে কথা বলবেন না। তাদের সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করুন এবং শুনুন। আমি প্রতিদিন এমন করি এবং লোকেদের সম্পর্কে জানা খুবই মজার।


এভাবে মানুষের সাথে কথা বলে আমার শেখা কিছু শিক্ষা/উদাহরণ এখানে শেয়ার করছি :


১। একজন রিয়েল এস্টেট সংস্থার মালিকের কাছ থেকে কাজের অফার পেয়েছিলাম।


২। বাড়িতে যাওয়ার সময় একজন বন্ধু বানিয়েছিলাম। আমার কাছে ফেরার টিকিট ছিল না, কিন্তু ভাগ্যক্রমে আমার আবার সেই একই লোকটির সাথে দেখা হয়ে গিয়েছিল এবং আমি তার রেলওয়ে বার্থটা শেয়ার করেছিলাম।


৩। এমন একজন ট্যাক্সি ড্রাইভারের সাথে দেখা হয়েছিল যার স্ত্রী একটি মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিতে কাজ করে (আমার ধারণা এটি গুগল ছিল, গুগল ডেভেলপার)। তার সাথে কথা বলার পরে, আমার অন্ধ দেশহিতৈষিতা নর্দমায় গিয়ে পড়েছিল।


[সম্পাদনা : লোকটার সাথে আমার কথপোকথন হয়েছিল তিন বছর আগে হায়দ্রাবাদে। আমার সঠিক মনে নেই ঠিক কোন কোম্পানির কথা লোকটা বলেছিলেন। তবে আমার এটুকু মনে আছে, লোকটা আমাকে বলার সময় একটা আইটি পার্কের দিকে ইঙ্গিত করেছিলেন যেটাতে বড় অক্ষরে গুগল লেখা ছিল]


৪। আমার অফিসের পিয়ন আমাকে আলাদাভাবে সম্মান করে।


৫। একবার বাড়িতে বাড়িতে সবজি বিক্রি করা বিক্রেতা আমার হারিয়ে ফেলা মানিব্যাগটি ফিরিয়ে দিয়েছিল।


৬। কিছু সুবিধাবঞ্চিত শিশু— যাদের আমি কলেজে পড়ার সময় পড়াতাম তারা প্রতি বছর আমাকে "শুভ শিক্ষক দিবস" কার্ড পাঠায় এবং এই দিনটা আমার বছরের সবচেয়ে সুন্দর দিন।


৭। আমি বেঙ্গালুরুতে থাকি। আপনি যখনি কোন রিকশাওয়ালার কাছে যাবেন তারা মিটারের দ্বিগুন নইলে মিটারের থেকে অতিরিক্ত ২০/৩০ রুপি বেশি চাইবে। তবে আমি যেহেতু আমার সমস্ত পথ একজন রিকশাচালকের কথা শুনতে শুনতে যাচ্ছিলাম, তিনি আমাকে পছন্দ করেছিলেন এবং তিনি আমার থেকে মিটারের ভাড়াই নিয়েছিলেন। মিটারে উঠেছিল ৭৪ রুপি এবং আমার জোরাজুরি করার পরেও তিনি মাত্র ৭০ রুপি নিয়েছিলেন।


৮। একবার রেস্তোঁরায় এক দম্পতি তাদের বাচ্চাকে নিয়ে একরকম হাঁসফাঁস করছিলেন। তারা খেতে পারছিলেন না। আমি আমার খাবারের জন্য অপেক্ষা করছিলাম তাই আমি বাচ্চাটির সাথে খেলতে শুরু করি। দম্পতি শান্তিতে খাবার খেয়েছিলেন। রেস্তোঁরাটা ছাড়ার সময় মুশুলধারে বৃষ্টি শুরু হচ্ছিল। ওই দম্পতি আমাকে রেস্তোঁরাটির বাইরে অপেক্ষা করতে দেখেন এবং আমাকে তাদের সাথে যাত্রা করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। যাত্রা চলাকালীন আমাদের মধ্যে দুর্দান্ত আলাপ হয়েছিল এবং তারা আমাকে একদম আমার বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দিয়েছিলেন।


৯। আমি বাসের সামনের দরজার কাছে বসে আমার স্টপের অপেক্ষায় ছিলাম। তাই আমি ড্রাইভারের সাথে কথা বলতে শুরু করলাম। ২০ মিনিটের মত আমরা মেয়েদের ক্ষমতায়ন থেকে শুরু করে আধ্যাত্মিকতা সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে কথা বললাম। এবং ড্রাইভারের বিস্ময়করকম জ্ঞান ছিল। "মেয়ে শিশু" সম্পর্কে তাঁর চিন্তাভাবনা আমাকে বিশ্বাস করতে বাধ্য করেছিল যে ভারত বদলে যাচ্ছে।


এমন হাজার হাজার কথোপকথন আমি শেয়ার করতে পারি। আমি শিখেছি যে প্রত্যেকে এমন সব লড়াই করছে যা এখন পর্যন্ত কেউ লড়েনি, কখনও কখনও এই কথোপকথনগুলি আমাকে আশা ও আত্মবিশ্বাস দেয়, জীবনের বিভিন্ন সমস্যাকে অন্যরকম দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখতে সাহায্য করে, যখন আমি হতাশ হই তখন এগুলো আমাকে ভাবতে সাহায্য করে যে বাবা,বন্ধুরা সহ কত ভালো একটা জীবন আমার রয়েছে। মানুষের সাথে কথা বলাটা আমার জন্য অপ্রতিরোধ্য।


সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে এই লোকগুলির কথা শুনে আপনি যে হাসিটা পাবেন সেটা অমূল্য। জীবন দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে, এবং সকলেরই যা দরকার তা হলো শোনার মত একজন শ্রোতা।


অনেকেরই মনে প্রশ্ন রয়েছে "কারো সাথে কথোপকথন কীভাবে শুরু করবেন?" প্রত্যেকেরই নিজস্ব উপায় থাকতে পারে তবে নীচে আমার কয়েকটি উপায় শেয়ার করছি।


১। ক্যাব চালকদের সাথে (উবার/পাঠাও/ওলা/ট্যাক্সি ইত্যাদি)— "এটি কি আপনার নিজের, নাকি আপনি ভাড়া নিয়েছেন?" অথবা "এতো ট্র্যাফিক নিয়ে আপনি হতাশ হন না?"


২। পাবলিক পরিবহন— কোনও মহিলা / বৃদ্ধ বয়সী ব্যক্তিকে আপনার সিট অফার করুন। জিজ্ঞাসা করুন আপনার স্টপেজ কখন আসবে? (আপনি নিজে কখন নামবেন তা জানলেও)। কেউ যদি বই পড়তে থাকে— তবে বইটি নিয়ে কথা বলা শুরু করুন।


৩। কফি শপ / রেস্তোঁরা— সাহায্য করুন (যেমন আমি এই দম্পতিকে সাহায্য করেছিলাম)। অথবা থালা-বাসন বাছাই করতে সাহায্য চান (এটি বিদেশ ভ্রমণের সময় কাজ করে)।


৪। আপনি যদি সুবিধাবঞ্চিত শিশু দেখেন— তারা স্কুলে যায় কিনা জিজ্ঞাসা করুন।


৫। আপনার অধীনস্থদের সাথে— দুপুরের খাবার খান।


৬। রাস্তার পাশে বিক্রেতাদের সাথে— "আপনি প্রতিদিন কত টাকার ব্যবসা করেন?" অথবা "আপনি কি এই জায়গার কেমন ভাড়া দেন" বা "আপনাকে এখানে দাঁড়াতে দেওয়ার জন্য কেমন ঘুষ দিতে হয়?"


সমস্ত কিছুর মন্ত্র হচ্ছে একজন ভালো পর্যবেক্ষক হোন। অন্যদের কী সমস্যা থাকতে পারে তা বুঝতে চেষ্টা করুন। তাদের সমস্যা/পরিস্থিতি/পছন্দ ইত্যাদি সম্পর্কে কথা বলা শুরু করুন।


সবাই নিজের সম্পর্কে কথা বলতে পছন্দ করে। তাদের একটি সুযোগ দিন।

বিস্তারিত
alibaba & Import Export expert

আমদানি,রপ্তানি,আলিবাবা নিয়ে যেকোনো সমস্যায় আমাকে ফেসবুকে মেসেজ করুন।

এখানে ক্লিক করুন
© 2020 eibbuy. All Rights Reserved.
Developed By Takwasoft